বাসর ঘরে চাবি বিড়ম্বনা

ষোলো আনা

পিয়াস সরকার | ১২ অক্টোবর ২০১৮, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:২৮
কমিউনিটি সেন্টারে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষে ক্লান্ত পরিবারের লোকজন। নতুন বধূ নিয়ে বাড়িতে যখন ঢুকলেন তখন ঘড়িতে সময় রাত ২টা। এমন সময় বর-বধূ ঢুকতে পারছেন না বাসর ঘরে। কারণ চাবি নাই। পরে জানা গেল চাবি  ভেতরে রেখে তালা লাগিয়ে দিয়েছেন ছোট বোন।

রাত তখন ৩টা। ডাকা হলো আজাদ হোসেনকে। তিনি চাবির কারিগর। রায়ের বাজার থেকে আসছেন চাবি বানাতে।
শঙ্করে এসে আরেক বিপত্তি। খুঁজে পাচ্ছেন না বাড়ি। বিয়ে বাড়ির  লোকজন তাকে খুঁজে বের করলেন। বিয়ে বাড়িতে আসলেন আজাদ। তখন ঘড়িতে সময় সাড়ে ৪টা। চাবি বানাতে লেগে গেল আরো ৩০ মিনিট। ৫টার সময়  খোলা হল বাসর ঘর। খুলে তিনি দেখেন ফুলে ফুলে সজ্জিত বাসর রাত। তবে ততক্ষণে রাত পার হয়ে ভোর হয়ে গিয়েছে। চাবি বানানো শেষে আজাদ দেখলেন নতুন বধূ সোফায় কাত হয়েই ঘুমিয়ে পড়েছেন। আজাদ হোসেন বলেন, সেদিন আমাকে ২ হাজার টাকা বকশিশ দিয়েছিলেন তারা।

আজাদ হোসেন (৪৫)। বাড়ি কুড়িগ্রাম জেলায়। ১২ বছর যাবৎ ঢাকা শহরে চাবির কাজ করেন। একবার, এক ১৫ বছরের ছেলে খেলতে গিয়ে হাত ভেঙে ফেলেন। বাড়ির লোকজন তাড়াতাড়ি করে ছেলের কাছে ছুটে যায়। ভুলে ঘরে ফেলে আসেন চাবি। ছেলের হাতে প্লাস্টার করিয়ে বাড়িতে ফিরে দেখেন চাবি নাই। আজাদ হোসেনের ডাক পড়ার পর দেখেন ফ্ল্যাটের পাশে বসে কাতরাচ্ছে ছেলে। তার মায়ের কান্না ভেজা চোখ। আরেকদিনের ঘটনা, এক ব্যক্তি শুক্রাবাদে এক রুম নিয়ে সাবলেট থাকেন। চাবি না পাওয়ায় রাগে লাথি দেন দরজায়। তাতে কেটে যায় নিজের পা। আমি চাবি বানিয়ে ঘরে ঢুকানোর পর তিনি আবিষ্কার করেন তার ব্যাগেই ছিল চাবি।




এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

‘বৃটেন এখনও অনুচ্ছেদ ৫০ রদ করতে পারে’

তাজমহলে প্রবেশমূল্য বেড়েছে

রাতেই দেশ ছাড়ছেন এরশাদ

নাজিব রাজাক গ্রেপ্তার

সিইসিসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল জারি

জবরদস্তি সত্ত্বেও জনগণ ধানের শীষের প্রার্থীকে ভোট দেবেই: নজরুল

তেরেসা মে’র সতর্কতা

ধানের শীষ প্রতীক পেলেন রেজা কিবরিয়া

হানিমুনেই মৃত্যু!

গোপন বৈঠক করছেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা: রিজভী

আতঙ্ক নয় আস্থার পরিবেশ চায় কমিশন : সিইসি

রিটার্নিং কর্মকর্তাদের কার্যালয়ে ভিড়, চলছে প্রতীক বরাদ্দ

পিরামিডে নগ্ন নরনারী, মিশরে ক্ষোভ

আমি নিঃশ্বাস নিতে পারছি না

‘পাকিস্তান সন্ত্রাসীদের আশ্রয় দিচ্ছে, একটি ডলারও দেয়া উচিত নয়’

পাষণ্ড ছেলে!