নারায়ণগঞ্জে বিএনপি’র নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ৪ মামলা, আসামি ৫৬১

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ থেকে | ১২ অক্টোবর ২০১৮, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ৪:০৩
বুধবার ২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ঘিরে নাশকতার প্রস্তুতি ও নাশকতা সৃষ্টির অভিযোগে নারায়ণগঞ্জে বিএনপি’র নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে ৪টি মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। মামলাগুলোতে আসামি করা হয়েছে বিএনপি’র ৫৬১ নেতাকর্মীকে আসামি করা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে সিদ্ধিরগঞ্জ, ফতুল্লা, বন্দর ও সোনারগাঁও থানায় মামলাগুলো দায়ের করা হয়। ৪টি মামলায় পুলিশ বিএনপি’র ১৩ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার দেখিয়েছে। এবং প্রত্যেকটি মামলায় একই অভিযোগ। ফতুল্লা মডেল থানার পিএসআই ফজলুল হক বাদী হয়ে বিএনপি’র ৪০ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত ১১০ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। মামলায় অভিযোগ করা হয় বুধবার ফতুল্লার ভূঁইগড় মাগুর মাছের খামারের সামনে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিঙ্ক রোডে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের ১৪০ থেকে ১৫০ জন নেতাকর্মী বিভিন্ন ধরনের অস্ত্রশস্ত্র ও বিস্ফোরক নিয়ে অস্থিতিশীল ও নাশকতা সৃষ্টির লক্ষ্যে বিক্ষোভ মিছিলসহ ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে যানবাহন ভাঙচুর করে। মামলায় ৪ জনকে গ্রেপ্তার দেখিয়েছে পুলিশ।
তারা হলো- রাসেল (২২), আনোয়ার (৫৫), হাবিব শেখ (৪০), জয়নাল আবেদীন (৪৫)। তারা ফতুল্লা এলাকার বাসিন্দা। বন্দর ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক মোহাম্মদ আলী বাদী হয়ে বিএনপি’র ১৬ জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত আরো ৩০ থেকে ৪০ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। মামলায় ৩ জনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। তারা হলো- বন্দর থানা যুবদলের সাবেক সভাপতি হাবিবুর রহমান দুলাল (৪৮), বন্দর থানা যুবদলের সভাপতি আমির হোসেন (৪৩) ও হরিপুর এলাকার আবদুল করিম মিয়ার ছেলে সানাউল্লাহ (৫২)। এর মধ্যে বন্দর থানা যুবদলের সাবেক সভাপতি হাবিবুর রহমান দুলাল বন্দর উপজেলা চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আতাউর রহমান মুকুলের ভাই। মামলায় অভিযোগ করা হয় আসামিরা বিভিন্ন ধরনের অস্ত্রশস্ত্র ও বিস্ফোরক দ্রব্যে সজ্জিত হয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড ঘটানোর চেষ্টা করে। সোনারগাঁ থানার এসআই তোহিদ উল্লাহ বাদী হয়ে বিএনপি’র ৪৮ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরো ৪০/৫০ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করে। মামলায় সোনারগাঁ উপজেলা যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নেতা কাজী এনামুল হক রবিন, উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়ন বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুন্নবী মাস্টার ও কাঁচপুর ইউনিয়ন তাঁতীদলের সভাপতি ইসমাইল হোসেনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। বুধবার পুলিশ তাদের আটক করে। জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক মামুন মাহমুদ বলেন, এসব গায়েবি মামলার মাধ্যমে বিএনপি’র নেতাকর্মীদের হয়রানি ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কারাবাসকে দীর্ঘায়িত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। শান্তিপূর্ণ আন্দোলন সংগ্রামের মধ্যদিয়ে এসব মামলা প্রত্যাহারে বাধ্য করা হবে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

‘বৃটেন এখনও অনুচ্ছেদ ৫০ রদ করতে পারে’

তাজমহলে প্রবেশমূল্য বেড়েছে

রাতেই দেশ ছাড়ছেন এরশাদ

নাজিব রাজাক গ্রেপ্তার

সিইসিসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল জারি

জবরদস্তি সত্ত্বেও জনগণ ধানের শীষের প্রার্থীকে ভোট দেবেই: নজরুল

তেরেসা মে’র সতর্কতা

ধানের শীষ প্রতীক পেলেন রেজা কিবরিয়া

হানিমুনেই মৃত্যু!

গোপন বৈঠক করছেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা: রিজভী

আতঙ্ক নয় আস্থার পরিবেশ চায় কমিশন : সিইসি

রিটার্নিং কর্মকর্তাদের কার্যালয়ে ভিড়, চলছে প্রতীক বরাদ্দ

পিরামিডে নগ্ন নরনারী, মিশরে ক্ষোভ

আমি নিঃশ্বাস নিতে পারছি না

‘পাকিস্তান সন্ত্রাসীদের আশ্রয় দিচ্ছে, একটি ডলারও দেয়া উচিত নয়’

পাষণ্ড ছেলে!