কেরানীগঞ্জে ৫০৮ বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

বাংলারজমিন

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি | ১২ অক্টোবর ২০১৮, শুক্রবার
কেরানীগঞ্জে  ৫০৮ জন বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় পৃথক দুইটি মামলায় তাদের আসামি করা হয়েছে।  মঙ্গলবার দিবাগত গভীর রাতে পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দুইটি দায়ের করেছেন। কেরানীগঞ্জ মডেল থানার এসআই ফরহাদ হোসেন ছোটন বাদী হয়ে এজাহারনামীয় ৪৯ জন এবং অজ্ঞাতনামা আরো ১০০ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। ৪৯ জন এজাহারনামীয় আসামির মধ্যে উল্লেখযোগ্য আসামিরা হচ্ছে কেরানীগঞ্জ মডেল উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক মো. হাসমত উল্লাহ নবী, ঢাকা জেলা যুবদলের সভাপতি রেজাউল কবীর পল, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা যুবদলের সভাপতি মোকাররম হোসেন সাজ্জাদ, জিনজিরা ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি আবু জাহিদ মামুন, জিনজিরা ইউনিয়ন বিএনপি’র সভাপতি হাজী ওমর শাহনেওয়াজ, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক মোজাদ্দেদ আলী বাবু, জিনজিরা ইউনিয়ন বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক মো. আজাদ হোসেন। অপরদিকে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার কলাতিয়া ফাঁড়ির এসআই মো. আনোয়ার হোসেন বাদী হয়ে এজাহারনামীয় ২০৯ জন ও অজ্ঞাতনামা আরো ১৫০ জনকে আসামি করে আরো একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় বিএনপি’র উল্লেখযোগ্য আসামিরা হচ্ছে মো. নাসির উদ্দিন, মো. মজিবর, মো. মালেক ও মো. নীরব। তবে এই আসামিদের পদ-পদবি জানা যায়নি। প্রথম মামলা সূত্রে জানা যায় মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টায় জিনজিরার মনু বেপারীর ঢালে শহীদ মিনারের সামনে বিএনপি’র নেতাকর্মীরা জড়ো হয়ে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও তারেক রহমানের বিচার প্রত্যাহারের দাবিতে মিছিল করে এবং রাস্তায় চলাচলকারী যানবাহন ভাঙচুর করে।
খবর পেয়ে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার এসআই মামলার বাদী ফরহাদ হোসেন ছোটন তার সঙ্গীয় ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে যায়। এসময় বিএনপি’র নেতাকর্মীরা গাড়ি ভাঙচুর করতে থাকে এবং ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পুলিশের কর্তব্য কাজে বাধা দেয়। পরে পুলিশ অ্যাকশনে গেলে বিএনপি নেতাকর্মীরা পালিয়ে যায়। অপর মামলা সূত্রে জানা যায় মঙ্গলবার রাত ১০টার সময় হযরতপুর ইউনিয়নের জগন্নাথপুর এলাকায় লিচু মিয়ার স’মিলের সামনে রাস্তায় বিএনপি’র নেতাকর্মীরা জড়ো হয়ে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও তারেক রহমানের বিচার প্রত্যাহার করার দাবিতে মিছিল বের করে। এসময় তারা রাস্তায় বিভিন্ন গাড়ি আটকিয়ে ভাঙচুর করতে থাকে। খবর পেয়ে মামলার বাদী কলাতিয়া পুলিশ ফাঁড়ির এসআই মো. আনোয়ার হোসেন তার সঙ্গীয় ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে যায়। এসময় বিএনপি’র নেতাকর্মীরা গাড়ি ভাঙচুর করতে থাকে এবং রাস্তায় ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়। পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করার জন্য ২ রাউন্ড শটগানের ফাঁকা গুলি করলে তারা দ্রুত পালিয়ে যায়। এব্যাপারে ঢাকা জেলা যুবদলের সভাপতি রেজাউল কবীর পল জানান, মনু বেপারীর ঢালে জিনজিরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের মধ্যে মারামারির ঘটনাকে ভিন্নখাতে নিয়ে বিএনপি’র নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে পুলিশ মিথ্যা মামলা দিয়েছে। আমরা এই মিথ্যা মামলার তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। জগন্নাথপুরের ঘটনাটি নিয়ে হযরতপুরের বিএনপি নেতাকর্মীরা জানান, মামলাটি সম্পূর্ণ মিথ্যা। আমরা এই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এব্যাপারে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের বলেন, পৃথক দুইটি জায়গায় বিএনপি’র নেতাকর্মীরা জড়ো হয়ে মিছিল ও গাড়ি ভাঙচুর করার সময় সেখানে পুলিশ গেলে তারা পুলিশের কর্তব্য কাজে বাধা দেয়। তাদের বিরুদ্ধে থানায় পৃথক  দুইটি মামলা রুজু করা হয়েছে। উল্লেখ্য, গত ২রা অক্টোবর দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায়ও এজাহারনামীয় ৫৯ এবং অজ্ঞাতনামা ২৫০ জনসহ ৩০৯ জন বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে একটি মামলা করা হয়েছে।




এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

‘বৃটেন এখনও অনুচ্ছেদ ৫০ রদ করতে পারে’

তাজমহলে প্রবেশমূল্য বেড়েছে

রাতেই দেশ ছাড়ছেন এরশাদ

নাজিব রাজাক গ্রেপ্তার

সিইসিসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল জারি

জবরদস্তি সত্ত্বেও জনগণ ধানের শীষের প্রার্থীকে ভোট দেবেই: নজরুল

তেরেসা মে’র সতর্কতা

ধানের শীষ প্রতীক পেলেন রেজা কিবরিয়া

হানিমুনেই মৃত্যু!

গোপন বৈঠক করছেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা: রিজভী

আতঙ্ক নয় আস্থার পরিবেশ চায় কমিশন : সিইসি

রিটার্নিং কর্মকর্তাদের কার্যালয়ে ভিড়, চলছে প্রতীক বরাদ্দ

পিরামিডে নগ্ন নরনারী, মিশরে ক্ষোভ

আমি নিঃশ্বাস নিতে পারছি না

‘পাকিস্তান সন্ত্রাসীদের আশ্রয় দিচ্ছে, একটি ডলারও দেয়া উচিত নয়’

পাষণ্ড ছেলে!