‘শুরু থেকেই চাপ ছিল, আমি যেন বলি অসুস্থ’

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ৯:৪৫
বিতর্ক চলছে সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার সদ্য প্রকাশিত ‘অ্যা ব্রোকেন ড্রিম: রুল অব ল’, হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ডেমোক্রেসি’  বই নিয়ে। প্রধান বিচারপতির পদ থেকে পদত্যাগ, অসুস্থতা, দেশত্যাগসহ নানা ইস্যুতে তিনি মুখ খুলেছেন। বইয়ের এক অংশে তিনি লিখেছেন, কেন দেশত্যাগে বাধ্য হলেন। এসকে সিনহা বইতে লিখেছেন, প্রেসিডেন্টের কাছ থেকে অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার অনুমতি পাওয়ার পর সিদ্ধান্ত নিলাম ২০১৭ সালের ১৩ই অক্টোবর দেশ ছাড়বো। কিন্তু যাওয়ার আগে বন্ধু আবদুর রশিদের সঙ্গে একরাতে খাবার খাওয়ার ইচ্ছা হলো এবং তাকে ফোন করলাম। জবাবে তিনি বললেন, তিনি জানতে পেরেছেন যে, আমার বাসভবনের গেটে প্রচুর বিড়ম্বনার মুখোমুখি হতে হবে। তাই আমি যেন গেটে জানিয়ে রাখি যে সন্ধ্যা ৭টায় তিনি আসবেন।

এই মতো, আমার ব্যক্তিগত সহকারীর মাধ্যমে গেটের নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের কাছে এই বার্তা পৌঁছে দিলাম।
এমন খবর জানানো সত্ত্বেও, নিরাপত্তা কর্মীরা গেটের সামনে তার গাড়ি থামিয়ে দেন। তার পরিচয় জানা সত্ত্বেও গাড়ি থেকে তাকে নেমে যেতে হয়। তার ফোন নম্বর লিখে রাখা হয়। কেন সাক্ষাৎ করতে এসেছেন তার কাছে তা জানতে চাওয়া হয়। তার ছবি তোলার পর তারা তাকে আমার বাসায় প্রবেশ করতে দেয়। এ নিয়ে আমার কাছে অসন্তোষ প্রকাশ করেন তিনি। আমাকে বলেন, খবর জানানো সত্ত্বেও তাকে অবমাননাকর অবস্থার মুখোমুখি হতে হয়েছে। এজন্য আমি তার কাছে দুঃখ প্রকাশ করলাম। বললাম, এ পরিস্থিতি আমার নিয়ন্ত্রণের বাইরে। তাকে নিশ্চয়তা দিলাম যে, তার নৈশভোজে আসার খবর আমি নিরাপত্তাকর্মীদের জানিয়েছি। আমাকে বলা হয়েছে, সন্ধ্যা থেকেই মিডিয়ার বিপুল সংখ্যক সাংবাদিক আমার বাসভবনের গেটে জড়ো হয়েছেন।

রাত ১১টায় সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে আমার যাওয়ার কথা। আমাকে বলা হলো, পরিস্থিতি অবনতিশীল। তাদের সঙ্গে কথা না বলে বাসা থেকে বের হওয়া আমার জন্য কঠিন হয়ে উঠতে পারে। তাই, আমি সিদ্ধান্ত নিলাম বাসা থেকে বের হওয়ার সময় মিডিয়ার সঙ্গে কথা বলবো। এর আগে আমি তিক্ত অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হয়েছি। তা হলো, আমার বক্তব্য মিডিয়ায় ভুলভাবে উদ্ধৃত করা হয়েছে। তাই শেষ বিকালে আমার সচিব আনিসুর রহমানকে আমার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে বলি এবং আমি একটি বিবৃতি প্রিন্ট করি। সেখানে আমি দুটি বিষয় উল্লেখ করি। তা হলো- আমার স্বাস্থ্য ভালো আছে। আগের দিন যেমনটা আইনমন্ত্রী বলেছেন যেটা আমি মিডিয়ার মাধ্যমে জেনেছি যে, তিনি সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন পাল্টে ফেলতে চান। বিবৃতিতে আমার দ্বিতীয় যে পয়েন্ট ছিল তা হলো, বিচার বিভাগের স্বাধীনতার বিষয়ে আমি বুঝতে সক্ষম। এই বিবৃতি দেয়ার আগে যখন আমি গেটে গাড়ি থেকে নামতে চাই তখন মিডিয়াকর্মীদের চাপাচাপিতে আমার গাড়ির পতাকা স্ট্যান্ড ও সাইড মিরর ভেঙে যায়। তাদের কাছে আমার বিবৃতি দিয়ে বিমানবন্দরের দিকে এগিয়ে যেতে থাকি।

একেবারে শুরু থেকেই সারা সময়ে আমার ওপর গোয়েন্দা সংস্থার চাপ ছিল যেন আমি বলি যে, আমি অসুস্থ। তারা আমাকে যখন হাসপাতালে ভর্তি করাতে ব্যর্থ হলো, তখন তারা চিকিৎসার জন্য আমাকে বিদেশে পাঠানোর চেষ্টা করে। পরে তাদের উদ্দেশ্য আমার কাছে পরিষ্কার হয়। এ কৌশল ছিল আইনমন্ত্রীর। তিনি কখনো সংবিধান মোতাবেক চলেননি। অতীতে তিনি শুধু কিছু ক্রিমিনাল বিষয়ে কাজ করেছেন। তাই সংবিধানের ৯৭ নম্বর অনুচ্ছেদ পড়ে তার মনে হয়েছিল, আমি যদি অসুস্থতার জন্য ছুটি নিই বা হাসপাতালে ভর্তি হই তাহলে প্রধান বিচারপতির কাজ চালিয়ে নিতে বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞাকে সরকারের দায়িত্ব দেয়া সহজ হবে। অন্যথা হলে, বার ও অন্যান্য বোদ্ধা মহলের সমালোচনা হজম করা খুব কঠিন হবে। বিভিন্ন সময় যখন আমার পূর্বসূরিরা দেশের বাইরে থেকেছেন তখন অনেকবার আমি প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব পালন করেছি।

সাধারণত আমি শুধু রুটিন ওয়ার্কগুলো করেছি। বিচার বিভাগের প্রশাসন সম্পর্কিত কোনো বিষয়ে কাজ করি নি। অফিসিয়াল রেকর্ড আরো বলে যে, প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব পালনকারী বিচারকের কাজে বিচার বিভাগের প্রশাসন সম্পর্কিত কোনো নীতিনির্ধারণের বিষয়ে হস্তক্ষেপ করেননি। এর কারণ, প্রধান বিচারপতির অনুপস্থিতিতে সবচেয়ে সিনিয়র বিচারক তার দায়িত্ব পালন করেন এবং তিনি প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ নেননি। প্রেসিডেন্ট পরিচালিত আলাদা একটি অনুষ্ঠানে শপথ নেন প্রধান বিচারপতি। তার কার্যক্রম সম্পর্কে সংবিধানে ও আইনে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা আছে।
দীর্ঘ সময় ধরে এই চর্চা চলে আসছে। কিন্তু এই সময়ে সব কিছু ভিন্ন ঘটলো। যেদিনটিতে আমার সরকারি বাসভবনে অবরুদ্ধ হয়ে পড়লাম সেদিনই বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞা এমন আচরণ দেখাতে চাইলেন যেন তিনিই প্রধান বিচারপতি। তিনি সব অফিসারকে একজনের পর একজনকে ডেকে হুমকি দিতে লাগলেন এবং তাদেরকে বললেন যে, তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে। সরকার তাদের আচরণে সন্তুষ্ট নয়।

তিনি সরকারের মুখপাত্র হয়ে উঠলেন এবং সরকারকে, বিশেষ করে আইন মন্ত্রণালয়কে সন্তুষ্ট রাখতে চাইলেন। দুটি ভিন্ন সময়ে বিচারপতি ভবানী প্রসাদ সিংহ ও বিচারপতি মো. রুহুল কুদ্দুস সন্ধ্যার দিকে আমার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে এলেন। এই খবর পেয়ে বিচারপতি রুহুল কুদ্দুসের ওপর অসন্তোষ প্রকাশ করেন বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞা। বললেন, বিচারপতি ভবানী প্রসাদ সিংহ আমার সঙ্গে সম্পর্কিত। কিন্তু কেন রুহুল কুদ্দুস আমার সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।
সিঙ্গাপুরে যাওয়ার পর আমি মিডিয়ার মাধ্যমে জানতে পারি যে, সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে আমার বিরুদ্ধে গুরুতর দুর্নীতির খবর প্রকাশিত হয়েছে। বুঝতে পারি যে, আমি মিডিয়াকে বলেছিলাম আমি অসুস্থ নই। তাই আইনমন্ত্রী ক্ষুব্ধ হয়েছেন এবং সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত খবর জেনেছেন। প্রধানমন্ত্রী এ নিয়ে মুখ খোলার পর ক্ষমতাসীন দলের প্রতি অনুগত একাত্তর টিভি একটি টকশোর আয়োজন করে। এতে আনা হয় সরকারের রাজনৈতিক খেলার পুতুলগুলোকে।

সেখান থেকে আমার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগের প্রচারণা শুরু হয়ে থাকে। যখন দৈনিক জনকণ্ঠ ও এর একজন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ আনা হয়েছিল তখনও একই রকম পদক্ষেপ নেয়া হয়েছিল। তখন ওই টকশোর একটি সিডি চেয়ে বসেন আদালত। কিন্তু আইনমন্ত্রীর অনুরোধে এ বিষয়ে আমি কোনো পদক্ষেপ নিইনি। একটি নৈশভোজে বিচারপতিদের আমন্ত্রণ জানিয়ে প্রেসিডেন্ট তাদেরকে বলেছেন, আমার বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ আছে। আমার ক্ষমতার সময়ে অনেক শক্তিধর ব্যক্তি ও দেশের অনেক ধনী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে রায় দিয়েছি। এর মধ্যে রয়েছে বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান, যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান, এশিয়ান সিটি, ফ্যান্টাসি কিংডম, চট্টগ্রামে জাহাজভাঙা শিল্পের মালিকদের বিরুদ্ধে, সিলেটের রাগীব আলীর বিরুদ্ধে। গুলশান, বনানী, মতিঝিল, ধানমন্ডি ও মগবাজার এলাকায় মূল্যবান সম্পত্তি নিয়ে হাইকোর্টের রায়কে আমি বাতিল করে দিয়েছি।

আর এখন প্রেসিডেন্ট ও সরকারের মদতপুষ্ট মিডিয়া আমাকে দুর্নীতিবাজ হিসেবে দেখানোর চেষ্টা করছে। যদি তাদের অভিযোগ সত্যি হয় তাহলে কার কাছ থেকে আমি বেআইনি সুবিধা নিয়েছি? আর এসব অভিযোগ আমার বিরুদ্ধে আনা হচ্ছে শুধু ষোড়শ সংশোধনীর রায় দেয়ার পরই। ওই রায় দেয়ার পর সরকার আমার চরিত্র হননের চেষ্টা করছে বেপরোয়াভাবে। এর মধ্য দিয়ে তারা তাদের অন্যায় ও অস্বাভাবিক কর্মকাণ্ডকে প্রতিষ্ঠা করতে চায়।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

খাজা মঈনুদ্দীন

২০১৮-০৯-২৪ ১০:২৬:০৮

সিনহা সাহেব ১০টি অন্যায় করেছেন ফরমায়েশি রায় দিয়ে খুন করে, সরকার ১টি অন্যায় করেছেন মিথ্যা অভিযোগে দেশত্যাগে বাধ্য করে। আরও নয়টি অন্যায়ের শাস্তি বাকী আছে।

Md. Fazlul hoque

২০১৮-০৯-২৪ ০২:১১:৩২

বিচারপতি জনাব মোঃ আব্দুল ওয়াহাব মিয়া কে প্রধান বিচারপতি না বানানো এটি সরকারের একটি স্মার্ট সিদ্ধান্ত ছিল ।

kabir ahmed

২০১৮-০৯-২৩ ০২:৩৩:৪৫

this book can be full published by the daily Manobzamin in series. so that we can get the full details.

ওবাইদুল ইসলাম

২০১৮-০৯-২২ ১৭:৫৩:১৬

সর্বোচ্চ আদালতের সর্বোচ্চ পদে বসে রাজনীতিতে মাথা না গলালে এই পরিণতি হত না । উনি সর্বোচ্চ আদালতের সর্বোচ্চ পদটাকে কলঙ্কিত করে নিজেকে এই পদের অযোগ্য ব্যাক্তি হিসাবে তুলে ধরেছিলেন ।

শামিম

২০১৮-০৯-২১ ২২:২৪:৫৯

দুঃখজনক

মাসুদ

২০১৮-০৯-২১ ১৯:৪০:০২

ওনার কথা সঠিক হলে তিনি আইন মন্ত্রীর অনুরোধ রেখেছেন। তার বিচার কাজে আর কার কার অনুরোধ রেখেছেন তা বলবেন কি?

Rahman

২০১৮-০৯-২১ ১২:০৩:১৬

Dangerous.......

Anonymous

২০১৮-০৯-২১ ০৯:২৬:১৯

The autocracy has been established already in Bangladesh for the first time since the birth of Bangladesh.There is no liberty among the citizens to speak freely.Allah save us please from the burning conditions.

aktaruzzaman Rafi

২০১৮-০৯-২১ ০১:২৯:৫১

হা হা হা

আপনার মতামত দিন

অপারেশন গর্ডিয়ান নট নরসিংদীতে ২ জঙ্গি নিহত

সরকারের দিকে তাকিয়ে ইসি

সিলেট থেকে ঐক্যফ্রন্টের মাঠের কর্মসূচি শুরু

চ্যারিটেবল মামলায় রায় ২৯শে অক্টোবর

‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন মুক্ত গণমাধ্যমের জন্য বড় হুমকি’

মনোনয়ন জুটবে কার ভাগ্যে

সম্পাদক পরিষদের সাত দফায় একাত্মতা সুপ্রিম কোর্ট বারের

চার দিনের সফরে সৌদি আরবে গেলেন প্রধানমন্ত্রী

৯টি ধারা সংশোধনী চেয়ে লিগ্যাল নোটিশ

গাজীপুরে ভোটের মাঠে আওয়ামী লীগ, মামলার বোঝা নিয়ে এলাকা ছাড়া বিএনপি

ঢাবি’র ‘ঘ’ ইউনিটের ফল প্রকাশ, বাতিলের দাবিতে অনশন

গ্যাসের দাম বাড়েনি ভর্তুকি দেবে সরকার

জাতীয়করণকৃত কলেজে আত্তীকরণে নতুন প্রস্তাব

‘নির্বাচন কমিশন নিরাপত্তা পরিষদ না’

মহাষ্টমী আজ

‘#মি টু’ এর বিপরীতে ‘#হিম টু’