শীতকালীন সবজির দাম চড়া

দেশ বিদেশ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:৪৭
রাজধানীর বাজারে সবজির দর কয়েক সপ্তাহ ধরে কিছুটা সস্তা ছিল। তবে, এখন বেশিরভাগ সবজি কেজিপ্রতি ৪০-৭০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে বাজারে। কেজিপ্রতি বাড়তি দর ১০ থেকে ২০ টাকা। এর মধ্যে বাজারে নতুন আসা শীতকালীন সবজি শিমের দর আরো চড়া, প্রতিকেজি ১২০-১৩০ টাকা। সবজি ছাড়া বাজারে অন্য পণ্যের দাম মোটামুটি স্থিতিশীল। রাজধানীর কাওরান বাজারসহ বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে এ তথ্য জানা গেছে। বাজারে বিভিন্ন ধরনের সবজি ৫০-৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করতে দেখা যায়। বিক্রেতারা জানান, বাজারে প্রতিকেজি বরবটি ৬০-৭০ টাকা, দেশি শসা ৬০-৭০ টাকা, শিম ১২০-১৩০ টাকা, মাঝারি লাউ প্রতিটি ৫০-৬০ টাকা, ঝিঙে ও চিচিঙ্গা ৬০ টাকা, ঢেঁড়স ৫০ টাকা, করলা ৫০ টাকা, মুলা ৬০ টাকা ও লম্বা বেগুন ৫০ টাকা চান বিক্রেতারা।
কাওরান বাজারের খুচরা দোকানে এসব সবজির দর ৪০-৬০ টাকা।
এই বাজারের বিক্রেতা তৈয়ব আলী বলেন, গত সপ্তাহে চিচিঙ্গা ২০-২৫ টাকা ছিল, এখন সেটা ৪০ টাকা। ৩৫ টাকার শসা এখন ৫০ টাকার নিচে বিক্রি করা যায় না। কাঁচা পেঁপে ১৫ টাকাও বিক্রি হয়েছে, এখন সেটা ২৫-৩০ টাকা। বাজারে দেশি পিয়াজ কেজিপ্রতি ৫৫ টাকা, দেশি কিং নামের পিয়াজ ৫০ টাকা এবং ভারতীয় পিয়াজ ৩০ টাকা কেজিতে বিক্রি করতে দেখা যায়, যা আগের সপ্তাহে মোটামুটি একই ছিল। কাওরান বাজারের পাইকারি দোকানে আদার দর কিছুটা কমেছে। সেখানে প্রতিকেজি চীনা আদা ১১০-১২০ টাকা ও মিয়ানমারের আদা ৯০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। অবশ্য খুচরা বাজারে আদার দর আগের মতোই। ছোট আকারের প্রতিপিস ফুলকপি আগের সপ্তাহের মতো বিক্রি হচ্ছে ৩০-৩৫ টাকায়। পাতাকপির দামও অপরিবর্তিত রয়েছে। আগের সপ্তাহের মতো এ সবজি প্রতিপিস বিক্রি হচ্ছে ২৫-৩০ টাকায়। এছাড়া গত সপ্তাহের দামে বিক্রি হচ্ছে বেগুন, করলা, বরবটি, কাকরোল, পটোল, ঝিঙা, ধুন্দল, ঢেঁড়স ও লাউ। বাজার ভেদে বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৩০-৫০ টাকা কেজি। উচ্ছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০-৫০ টাকা। বরবটি ৫০-৬০ টাকা, চিচিঙ্গা, পটোল, ঝিঙা, ধুন্দল, কাকরোল বিক্রি হচ্ছে ৩০-৪০ টাকা কেজি। পেঁপে আগের মতো ২০-৩০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। ৩০-৪০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে করলা। ঢেঁড়স পাওয়া যাচ্ছে ২০-৩০ টাকা কেজির মধ্যে। বাজারে ইলিশের সরবরাহ বেশ ভালো, তবে দাম তেমন একটা কমেনি। ৫০০ গ্রাম ওজনের প্রতিটি ইলিশ ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা, ৬০০-৭০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ প্রতিটি ৫৫০-৬০০ টাকা এবং ৮০০-৯০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ প্রতিটি ৭৫০-৮০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এক কেজির বেশি ওজন হলে ইলিশের দর যেন আকাশছোঁয়া। প্রতিকেজি চাওয়া হচ্ছে কমপক্ষে ১ হাজার ২০০ টাকা। কাওরান বাজারের মাছ বিক্রেতা লিয়াকত বলেন, গত বছর এ সময়ে ইলিশের দাম অনেক কম ছিল। এবার তেমন একটা কমেনি। অন্যদিকে, প্রতিকেজি ব্রয়লার মুরগী বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৩৫ টাকা, খাসির মাংস ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকা, গরুর মাংস ৪৮০ থেকে ৫০০ টাকায়।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

‘হামলা চালিয়ে পুলিশ নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট করছে’

স্পিকারের ঘোষণা: পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারিয়েছেন রাজাপাকসে

বিনা উস্কানিতে পুলিশের ওপর হামলা:ডিসি মতিঝিল

একপক্ষ নির্বাচন করবে, আর আমরা আদালতে আসবো তা হতে পারে না

ছররা গুলির স্প্লিন্টারে আহত মানবজমিন প্রতিবেদক রুদ্র মিজান

‘নয়া পল্টনে সরকারের পরিকল্পিত হামলা’

ফের হেলমেট বাহিনী!

গণভবন ঘিরে নেতাকর্মী ও সমর্থকদের ঢল

রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংসতা ক্ষমার অযোগ্য

তৃতীয় দিনেও বিএনপির মনোনয়নপত্র কিনতে উপচে পড়া ভিড়

পশ্চিমবঙ্গের নাম বাংলা করা নিয়ে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রকের আপত্তি

সরকারী টাকায় আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রচার বন্ধের দাবি বিএনপির

২৮ বছর বয়সেই ফোর্বস ম্যাগাজিনে নাম!

ট্রেন চলাচল বন্ধ

কক্সবাজারে উজ্জ্বীবিত বিএনপি

ডিসেম্বরে শুনানি শেষে চূড়ান্ত রায় শ্রীলঙ্কা সুপ্রিম কোর্টের