স্ত্রীর মৃত্যুতে বিধ্বস্ত নওয়াজ শরীফ

দেশ বিদেশ

মানবজমিন ডেস্ক | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার
একের পর এক আঘাতে বিধ্বস্ত পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ। প্রথমে তিনি দুর্নীতির অভিযোগে হারিয়েছেন প্রধানমন্ত্রিত্ব। তারপর এ বছর ওই মামলায় তার, মেয়ে মরিয়ম ও জামাই মোহাম্মদ সফদারের বিরুদ্ধে জেল দেন আদালত। সেই জেলের রায় মাথায় নিয়েই তিনি পাকিস্তানে ফেরেন। তাকে বিমানবন্দর থেকেই গ্রেপ্তার করে নেয়া হয় জেলে। এরপর তার দল পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএলএন) ক্ষমতা হারায়। সবচেয়ে বড় আঘাতটি আসে মঙ্গলবার। এদিন ক্যানসারে আক্রান্ত তার সহধর্মিণী কুলসুম নওয়াজ মারা যান।
এ আঘাতে একেবারে ভেঙে পড়েছেন তিনি, মেয়ে মরিয়ম। অনলাইন ডন জানাচ্ছে, মৃত কুলসুমের প্রথম জানাজা লন্ডনে হবে বৃহস্পতিবার। এরপর তার দেহ বিমানে করে আনা হবে লাহোরে। সেখানে জাতি উমরায় দাফন করা হবে তাকে। এ জন্য রাওয়ালপিন্ডির আদিয়ালা জেলে বন্দি থাকা নওয়াজ শরীফ, মেয়ে মরিয়ম নওয়াজ ও জামাই অবসরপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ সফদারকে মুক্তি দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার কুলসুম মারা যাওয়ার কয়েক ঘণ্টা পরেই তাদেরকে প্যারোলে মুক্তি দেয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, তারা ১২ ঘন্টার জন্য প্যারোলে মুক্ত থাকবেন। তবে ডন বলছে, এই প্যারোল শুক্রবার বিকালে জাতি উমরায় বেগম কুলসুমকে দাফন না করা পর্যন্ত বর্ধিত করা হতে পারে। তাদেরকে প্যারোলে মুক্তি দেয়া হয় পাঞ্জাব স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে। এরপর মুক্ত নওয়াজদেরকে সেই নূর খান বিমানঘাঁটিতে নিয়ে যাওয়া হয়, যেখান থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। তাদের কমপক্ষে ৫ দিনের প্যারোলে মুক্তি দাবি করে আবেদন করেছিলেন নওয়াজ শরীফের ভাই ও পিএমএলএনের প্রেসিডেন্ট শাহবাজ শরীফ। কিন্তু প্যারোল অনুমোদন করা হয়েছে ১২ ঘণ্টার জন্য। সরকারের একটি সূত্র বলেছেন, লাহোরে শরীফ পরিবারের আবাসিক এলাকা জাতি উমরায় বেগম কুলসুমের দাফন শেষ না হওয়া পর্যন্ত প্যারোলের মেয়াদ বাড়াবে পাঞ্জাব সরকার। ওদিকে পিএমএলএনের পক্ষ থেকে সরকারের কাছে আরো একটি আবেদন করা হবে বলে জানানো হয়েছে। ওই আবেদনে জাতি উমরা বাসভবনকে একটি সাবজেল ঘোষণা করে সেখানে শরীফদের থাকার অনুমতি চাওয়া হবে। কুলসুম নওয়াজ অনেকদিন ধরেই অসুস্থ। গত বছর আগস্টে তার গলায় ক্যান্সার ধরা পড়ে। ১৫ই জুন তার কার্ডিয়াক এরেস্ট হয়। তাকে দ্রুত লন্ডনের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারপর থেকে মৃত্যৃর শেষ দিন পর্যন্ত তিনি সেখানেই ছিলেন। পরিবারের সূত্র মতে, রোববার রাত থেকে তার অবস্থার অবনতি হতে থাকে। রাখা হয় লাইফ সাপোর্টে। কিন্তু কুলসুম আর ফিরতে পারেননি। মঙ্গলবার তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। পারিবারিক সূত্র আরো বলেছে, দলের সভাপতি ও জাতীয় পরিষদের বিরোধীদলীয় নেতা শাহবাজ শরীফ ও তার ছেলে হামজা শাহবাজ লন্ডন যেতে পারেন। লন্ডনের রিজেন্ট পার্ক মসজিদে বৃহস্পতিবার প্রথম নামাজে জানাজা হবে। তারা তাতে যোগ দিতে চান। সেখান থেকে লাহোরে নিয়ে আসা হবে দেহ। তবে তার সঙ্গে পাকিস্তানে আসবেন না ছেলেরা। মৃতদেহের সঙ্গে থাকবেন শরীফ দম্পতির কন্যা আসমা, নাতনি জাক্রিয়া শরীফ।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান নিশানের চেয়ারম্যান গ্রেপ্তার

বিএনপি নির্বাচন বানচাল করতে চায়: কাদের

গণফোরামে যোগ দিলেন সাবেক ১০ সেনা কর্মকর্তা

খালেদা জিয়ার যথাযথ চিকিৎসা দেয়ার নির্দেশ হাইকোর্টের

‘তারেক রহমানের বিষয়ে ইসির করণীয় নেই’

আমজাদ হোসেনের শারীরিক অবস্থার অবনতি

দল ও জোটের মনোনয়ন প্রক্রিয়ার ব্যাখ্যা চেয়ে ইসিকে বিএনপির চিঠি

'নির্বাচনী হলফনামায় ভুল তথ্য দিলে ব্যবস্থা নেবে দুদক'

‘ভালো প্রার্থীদের জামিন না দেয়ার নতুন কৌশল নিয়েছে সরকার’

নির্বাচনের ইশতেহার প্রস্তুত করছে বিএনপি: আমীর খসরু

রোহিঙ্গা ইস্যুতে আসিয়ানের পরবর্তী পদক্ষেপ কি?

প্রতি বছর দেয়া হবে ‘মাদার অব হিউম্যানিটি সমাজকল্যাণ পদক’

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলা সাজা স্থগিত চেয়ে খালেদার আপিল

নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়ে নিয়মিত আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে ইইউ, অংশগ্রহণমূলক ও স্বচ্ছতার প্রত্যাশা

দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন যেনো প্রভাবিত না হয়

লক্ষ্য ক্রাউন প্রিন্সকে রক্ষা করা!