নকল ইলিশ

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ৩১ আগস্ট ২০১৮, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ৮:১৭
বাঙালির ইলিশের প্রতি আকর্ষণ বেড়েই চলেছে। ইলিশ নামে নকল মাছেও ঝাঁপিয়ে পড়ছে ইলিশ প্রিয় বাঙালি। পদ্মা-মেঘনার ইলিশ না পেয়ে বাঙালি এখন রসনা মেটাচ্ছে নকল ইলিশে। আর ব্যবসায়ীরা বাঙালির এই ইলিশ প্রীতির সুযোগ নিয়ে একই রকম দেখতে মাছকে ইলিশ বলে বাজারে দেদারসে বিক্রি করছেন। কলকাতার সব বাজারই নকল ইলিশে সয়লাব। হাওড়ার মাছ আড়তের ব্যবসায়ীরা অভিযোগ জানিয়েছেন, কিছুদিন আগেই এক ধরনের খয়ড়া মাছকে ইলিশ বলে বিভিন্ন বাজারে বিক্রির অভিযোগ তারা পেয়েছেন।

তবে এবার সুদূর দক্ষিণ আমেরিকার উরুগুয়ের সামুদ্রিক মাছকে খোকা ইলিশ হিসেবে বিক্রি করা হচ্ছে। সেই সাছ বেশ কম দামে পাওয়া যাচ্ছে বলে বাঙালি কোনও বিচার না করেই তা কিনে নিয়ে যাচ্ছেন।
তবে মাছের আড়তের ব্যবসায়ীরা বলেছেন, এই সামুদ্রিক মাছের স্বাদ কোনওভাবেই ইলিশের মত নয়। তাই ক্রেতারা আদপে ঠকছেন। ইলিশ বলে যে নকল মাছকে বাজারের বিক্রি করা হচ্ছে তার নাম শ্যাড মাছ। দেখতে রূপোলি। আকৃতিতে ছোট। অনেকটা ইলিশের মতোই। পাইকারি মাছ বিক্রেতারা একে বিদেশের মাছ হিসাবে বিক্রি করলেও খুচরো ব্যবসায়ীরা অনেক ক্ষেত্রেই একে কম দামের খোকা ইলিশ হিসাবে বিক্রি করে দিচ্ছেন। বছর কয়েক ধরেই চলছে এই নকল ইলিশ বিক্রির রমরমা।

হওড়া পাইকারি মাছ বিক্রেতা সমিতির সম্পাদক সৈয়দ আনোয়ার মাকসুদ বলেছেন, এই মাছ আসলে দক্ষিণ আমেরিকার মাছ। বছর চারেক আসছে। আমরা মার্কেটে এটাকে চকোরি মাছ বলি। তিনি জানিয়েছেন, আমরা সাধারণ বিদেশি সামুদ্রিক মাছ হিসেবেই এই মাছ বিক্রি করি। বাইরে কে কিভাবে বিক্রি করছে তা বলা মুশকিল। তবে ইলিশের নামে শ্যাড মাছ খাওয়ানো ঘটনা অনেক পাইকারি ব্যবসায়ী জানেন বলে জানা গেছে। পাইকারি বাজার সুত্রে জানা গেছে, আগস্ট মাসের মাঝামঝি থেকেই বাজারে আসতে শুরু করে সামুদ্রিক শ্যাড মাছ। এর দাম ১২০ থেকে ২০০ রুপি প্রতি কিলো। এক মাছ ব্যবসায়ী বলেছেন, ইলিশ যতই ছোট হোক না কেন, এই দামে তা পাওয়া যায় না। কমপক্ষে ২০০ থেকে ২৫০ রুপি কেজি হয়। যদি কেউ ১৫০ রুপিতে ইলিশ বলে কোনও মাছ বিক্রি করে তাহলে নিঃসন্দেহে সেটি শ্যাড মাছ। স্বাদে এই মাছ ইলিশের ধারে কাছে নেই।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

রংপুরেই এরশাদের সমাধি

লক্ষাধিক বিও অ্যাকাউন্ট বন্ধ

যে কারণে পুঁজিবাজারে পতন থামছে না

মিন্নি গ্রেপ্তার

হাসপাতালে হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগীদের ভিড়

ছুরি নিয়ে কীভাবে গেল তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে

সব আদালতে নিরাপত্তা বাড়ানো হবে

ঘাতকের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি, মামলা ডিবিতে

উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে উপজেলা পর্যায়ে কারিগরি প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হচ্ছে

বাসর হলো না নবদম্পতির

১১ কোম্পানির দুধে সিসা ও ক্যাডমিয়াম

চীনা ডেমু ট্রেন আর কেনা হবে না

বিচারকদের নিরাপত্তা চেয়ে রিট

আসাদকে পাল্টা জবাব আরিফের

৩ মাস পর কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অ্যাকশন শুরু

বাঁচানো গেল না সার্জেন্ট কিবরিয়াকে