ইমিকে চার প্রশ্ন

দেশ বিদেশ

মরিয়ম চম্পা | ১৬ আগস্ট ২০১৮, বৃহস্পতিবার
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শেখ তাসনিম আফরোজ ইমিকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের জিম্মায় ছেড়ে দিয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। মঙ্গলবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শামসুন্নাহার হলের সামনে থেকে গোয়েন্দা পুলিশ তাকে আটক করে নিয়ে যায়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে রাতেই তাকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের জিম্মায় ছেড়ে দেয় ডিবি। পরে তাকে পরিবারের জিম্মায় দেয়া হয়। সূত্রমতে গোয়েন্দা কার্যালয়ে ইমির কাছে জানতে চাওয়া হয় তিনি কোটা সংস্কার আন্দোলন এবং কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত কিনা। কি কারণে তিনি ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। ইমি জানিয়েছেন তিনি কোটা সংস্কারের দাবিতে গড়ে উঠা আন্দোলনে সম্পৃক্ত। মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান হিসেবে আন্দোলনকারীদের রাজাকারের বাচ্চা গালি দেয়ায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে ইমি স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন।
এছাড়া তার পরিবারের লোকজন আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। সূত্র জানায়, গোয়েন্দা কার্যালয়ে ইমির মোবাইল ফোন, ফেসবুক আইডি পরীক্ষা করা হয়। তাকে জানানো হয়, ফোন এবং ফেসবুকে তার গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করা হবে।
ইমির বাবা সরিষাবাড়ী যমুনা সার কারখানায় চাকরি করেন। তিন ভাই-বোনের মধ্যে ইমি সবার বড়। গ্রামের বাড়ি খুলনা হলেও বাবার চাকরির সুবাদে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সরিষাবাড়ী থাকেন। মেজো ভাই সিলেট পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী। ইমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সংগঠন স্লোগান ’৭১-এর সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও স্বেচ্ছায় রক্তদান সংগঠন বাঁধনের শামছুন্নাহার হলের সাবেক সভাপতি।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ভোট হয়েছে রাতেই, নেতাদের প্রতিও ক্ষোভ

নাটেশ্বরের ঘরে ঘরে কান্না

গাড়িতে গাড়িতে ‘গ্যাস বোমা’

রাসায়নিকের গোডাউন ওয়াহেদ ম্যানশন

সরকারকে দায়ী করে বিএনপির মন্তব্য দায়িত্বজ্ঞানহীন: তথ্যমন্ত্রী

চ্যালেঞ্জ ছুড়ে সিলেটে মাঠে ৫ বিদ্রোহী আওয়ামী লীগে দ্বিধাবিভক্তি

সড়কে মৃত্যুর মিছিল যেন স্বাভাবিক

বাংলাদেশের জনগণ ভালো থাকলে কিছু মানুষ অসুস্থ হয়ে যায়

গা ঢাকা দিয়েছেন গোডাউন মালিকরা

চার জেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৫

কোথায় হারালো দুই বোন

আজিমপুরে শোকের মাতম

কান্নায় ভারি হয়ে উঠেছে বাতাস

কন্যার স্মৃতিতে পিতা

বাংলাদেশের জনগণ ভালো থাকলে কিছু মানুষ অসুস্থ হয়ে যায়

দরিদ্র্যতা নয় লোভের বলি