সালিশে ধর্ষক আওয়ামী লীগ নেতার জরিমানা ৫ লাখ টাকা

বাংলারজমিন

চৌহালী (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি | ১৪ আগস্ট ২০১৮, মঙ্গলবার
এনায়েতপুর থানার দৌলতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবুলকে এলাকার এক তাঁত শ্রমিকের স্ত্রীকে ধর্ষণ করায় গ্রাম্য সালিশে সাজা দেয়া হয়েছে। এছাড়া সিনিয়র আওয়ামী লীগের নেতাদের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত এই সালিশি বৈঠকে লম্পট এ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কারও করা হয়েছে। দুই সন্তানের জননী ধর্ষিত ওই গৃহবধূ অভিযোগ করে জানান, গোপরেখী গ্রামের মাস্টারপাড়ায় তাদের বাড়ি। হাবুল বাড়ি এসে তাকে বলে এমপি মজিদ মণ্ডলের দেয়া ভিজিএফ কার্ড ও ৫০০ টাকায় নাম তাকে দেয়া হবে। হঠাৎ গত ৩০শে জুলাই বেলা ১২টার সময় অঝোরধারায় বৃষ্টি নামার সময় বাড়িতে কেউ ছিল না বিধায় আসে হাবুল। এ সময় ভেতরে প্রবেশ করা মাত্রই ঘরে শিকল আটকিয়ে দেয়। এরপর ওই গৃহবধূকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। বাধা দেয়ায় তাকে মারধর ও হাতের শাঁখা ভেঙে ফেলা হয় বলে তিনি অভিযোগ করেন।
বিষয়টি তার মাধ্যমে জানাজানি হলে বেলকুচি ও এনায়েতপুর থানাজুড়ে ব্যাপক নিন্দার ঝড় বয়ে যায়। পরে নির্যাতিত স্ত্রীর স্বামী ও তার পরিবারের অন্য সদস্যরা সাবেক মন্ত্রী সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ বিশ্বাসসহ দলের সব পর্যায়ের নেতা-কর্মী ও সমাজপতিদের কাছে অভিযোগ দিলে গত সোমবার রাতে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাসের বাড়ি বেলকুচির কামারপাড়ায় এক জনাকীর্ণ সালিশ বৈঠক বসে।
বৈঠকে দোষ স্বীকার করে লম্পট হাবুল। পরে জুরি বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নির্যাতিত ওই নারীকে মা বলে পা ধরে ক্ষমা চান লম্পট হাবুল। করা হয় ৫ লাখ টাকা জরিমানা। এছাড়া দল এবং পদ থেকে করা হয় বহিষ্কার। এরপরও আজীবনের জন্য নির্যাতিতার বাড়ির আশপাশ তথা ওই মাস্টারপাড়া যেতে তাকে অলিখিত নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। এর সবই মেনে নেন লম্পট হাবুল। যা গ্রাম্য সালিশে দৃষ্টান্ত মনে করে উপস্থিত সবাই।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ঋণ খেলাপি হওয়ায় চিফ হুইপ ফিরোজ নির্বাচন করতে পারবেন না: আইনজীবী

প্রেমিককে হত্যার পর...

সংসদ নির্বাচন পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নির্বাচন নয়

গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে আরব আমিরাতে বৃটিশ শিক্ষার্থীর জেল

বয়সের পার্থক্য ৪৫ বছর, দাম্পত্যের গোপন রহস্য

প্রতিযোগিতাপূর্ণ অর্থনীতিতে সুশাসন প্রয়োজন

বিএনপি নেতা গিয়াস কাদের চৌধুরী কারাগারে

১৫ ডিসেম্বরের পর মাঠে থাকবে সশস্ত্র বাহিনী

বিভিন্ন দেশের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নে আমরা অর্থনৈতিক কূটনীতিকে প্রাধান্য দিচ্ছি

‘খাসোগি হত্যায় ক্রাউন প্রিন্সের বিচার চাওয়া সীমা লঙ্ঘন’

ঐক্যফ্রন্টের ইশতেহারে যা থাকছে

জনগণের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে, সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে

পৌঁছামাত্র বাংলাদেশীদের ভিসা দেবে চীন

ব্যারিস্টার মইনুলের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন ১০ জানুয়ারি

ঢাকায় ডেঙ্গু নিয়ে গার্ডিয়ানের প্রতিবেদন, এ বছর মারা গেছেন ১৭ জন

তৈরির পোশাক খাতের জন্য অশনি সংকেত