‘স্পার্তাক মস্কো’ মস্কোর এক ব্যতিক্রম ক্লাবের নাম

রাশিয়া থেকে

স্পোর্টস রিপোর্টার, মস্কো (রাশিয়া) থেকে | ১৬ জুলাই ২০১৮, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:৪৪
রাশিয়া পুঁজি বাজারে প্রবেশ হয়েছে ঠিকই। ব্যক্তি মালিকানার ব্যবসা-বাণিজ্য শিল্প প্রতিষ্ঠানও গড়ে উঠেছে এখানে। কিন্তু মানুষের মূল দু’টি প্রয়োজন শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবা রাশিয়ানরা পায় বিনামূল্যে। এখনো শিক্ষা ও স্বাস্থ্য পুরোপুরি রাশিয়ান সরকারের নিয়ন্ত্রণে। সেখানে কোনো বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নেই, নেই কোনো বেসরকারি নার্সিংহোম, হসপিটাল আর ডাক্তারের প্রাইভেট প্র্যাকটিস। রাশিয়ার খেলাধুলাও অনেকটা সরকারের নিয়ন্ত্রণে। ১২টি স্টেডিয়ামে হচ্ছে বিশ্বকাপ ফুটবলের এবারকার আসর। যার মধ্যে ১১টি স্টেডিয়াম ছিল সরকারের অধীনে।
কেবল স্পার্তাক
স্টেডিয়াম ছাড়া। ‘স্পার্তাক মস্কো’ নামের একটি ক্লাবের নিজস্ব স্টেডিয়াম এটি। ‘স্পার্তাক মস্কোই’ মস্কোর একমাত্র ব্যক্তিমালিকানার বড় ক্লাব।
গত শতাব্দির শুরুর দিকে মস্কোয় অনেক ফুটবল ক্লাব ছিল। যার মালিকানায় ছিল বিভিন্ন সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান। লোকোমোটিভ মস্কো ছিল রেল শ্রমিকদের ক্লাব, ডায়নামো মস্কো ছিল এনকেভিডি নামক এক প্রতিষ্ঠানের ক্লাব, সিএসকেএ মস্কো ছিল সেনাবাহিনীর ক্লাব, মোটরযান শ্রমিকদেরও আলাদা একটা ক্লাব ছিল টর্পেডো মস্কো নামে। এসব ক্লাব রাশিয়ান ফুটবলে এখনও রাজত্ব করে চলেছে। এদের রাজত্বে হানা দিতেই নিকোলাই নামে এক ভদ্রলোকের একটি ক্লাব করার কথা প্রথম মাথায় আনেন। নিকোলাই ফুটবলের পাশাপাশি একই সঙ্গে আইস হকির নামকরা খেলোয়াড় ছিলেন। তিন সহোদর আলেকজান্ডার, আন্দ্রে ও পিতরকে নিয়ে এই ক্লাবটি প্রতিষ্ঠা করেন তিনি। তাদের মূল উদ্যেশ্য ছিলো এটি কোনো প্রতিষ্ঠান বা সংস্থার নয়, হবে সাধারণ মানুষের দল।
‘মস্কো স্পোর্টস সার্কেল’ নামে যাত্রা শুরু করলো ক্লাবটি। পরবর্তীতে নামকরণ হলো ‘রেড প্রেসনিয়া’। প্রেসনিয়া ছিল নিকোলাই ও তার ভাইদের জন্মস্থান। রাশিয়ান শব্দ ‘লুডমি লিয়া লাউডি’ ভাষান্তর করলে দাঁড়ায় ‘মানুষের দ্বারা, মানুষের জন্য।’ এটা স্পার্তাক মস্কোর স্লোগান। স্লোগান এবং প্রতিষ্ঠাকালীন ইতিহাসের কারণে এটা জনগণের দল। সমর্থকরা আক্ষরিক অর্থেই তা বিশ্বাস করেন। তাদের দৃষ্টিতে স্পার্তাক মস্কো কেবল একটা ক্লাব নয়, তার চেয়েও বেশি কিছু। শুরুর দিকে এ ক্লাবে নিজেরাই খেলতেন। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে যার জনপ্রিয়তাও বাড়তে থাকে। বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের হাতঘুরে ক্লাবটির পরিধি বিস্তৃত হতে থাকে। ১৯৩৪ সালে রোমান সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করা দাস স্পার্টাকাসের নাম থেকে ‘স্পার্তাক’ শব্দ নিয়ে সঙ্গে জুড়ে দেয়া হয় শহরের নাম। সেই স্পার্তাক মস্কো এখন রাশিয়ার অন্যতম জনপ্রিয় ক্লাব। দুর্দান্ত সাফল্যের কারণে বেড়ে ওঠে জনপ্রিয়তা। ক্লাব নিয়ে সমর্থকরা এতটাই উন্মত্ত যে, প্রিয় দলের জন্য প্রয়োজনে রক্ত ঝরাতে প্রস্তুত! ‘স্পার্তাক মস্কো কেবল একটা ফুটবল ক্লাব নয়, এটা তার চেয়ে বেশি কিছু। আমি যদি বলি ক্লাবকে জীবনের চেয়ে বেশি ভালবাসি, সেটা মিথ্যা বলা হবে। এটা নিশ্চিত যে, নিজের জীবনের মতোই ভালোবাসি এ ক্লাবকে’- বলছিলেন ভার্সিটি পড়ুয়া স্পার্তাক মস্কো সমর্থক আলেক্স।  ওই ভালোবাসা কেবল দূরে থেকেই নয়, সপ্তাহান্তে রুটিন করেই নিজ দলের খেলায় মাঠে হাজির হন আলেক্স এবং তার বন্ধুরা। ক্লাবের প্রতি প্রগাঢ় ভালোবাসার টানে এসব সমর্থক প্রতিপক্ষ দলের সমর্থকদের সঙ্গে প্রায়ই জড়িয়ে পড়েন সংঘর্ষে। যা বিভিন্ন সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে রূপ নেয়। গেল ফেব্রুয়ারিতে ইউরোপা লীগে অ্যাথলেটিক বিলবাওয়ের বিপক্ষে ম্যাচে এমনই এক সংঘর্ষে জড়ায় স্পার্তাক সমর্থকরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গিয়ে প্রাণ হারান বিলবাওয়ের এক পুলিশ কর্মকর্তা।
ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটিকে নিয়ে গর্ব করার অনেক কারণ রয়েছে মস্কোবাসীর। ৯৬ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত স্পার্তাক মস্কো সোভিয়েত চ্যাম্পিয়নশিপে ১২ বার এবং রাশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে দশবার শিরোপা জিতেছে। ১০টি সোভিয়েত কাপ ৩টি রাশিয়ান কাপের শিরোপা শোভা পাচ্ছে ক্লাবের শো-কেসে। এছাড়া বর্তমান রাশিয়ান সুপার কাপের চ্যাম্পিয়নও স্পার্তাক মস্কো। স্পার্তাক মস্কোর নিজস্ব স্টেডিয়াম স্পার্তাক স্টেডিয়ামের একটি কোয়ার্টার ফাইনালসহ ছয়টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে। রাশিয়া জাতীয় দলের ছয়জন আছেন স্পার্তাকের।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ঋণ খেলাপি হওয়ায় চিফ হুইপ ফিরোজ নির্বাচন করতে পারবেন না: আইনজীবী

প্রেমিককে হত্যার পর...

সংসদ নির্বাচন পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নির্বাচন নয়

গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে আরব আমিরাতে বৃটিশ শিক্ষার্থীর জেল

বয়সের পার্থক্য ৪৫ বছর, দাম্পত্যের গোপন রহস্য

প্রতিযোগিতাপূর্ণ অর্থনীতিতে সুশাসন প্রয়োজন

বিএনপি নেতা গিয়াস কাদের চৌধুরী কারাগারে

১৫ ডিসেম্বরের পর মাঠে থাকবে সশস্ত্র বাহিনী

বিভিন্ন দেশের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নে আমরা অর্থনৈতিক কূটনীতিকে প্রাধান্য দিচ্ছি

‘খাসোগি হত্যায় ক্রাউন প্রিন্সের বিচার চাওয়া সীমা লঙ্ঘন’

ঐক্যফ্রন্টের ইশতেহারে যা থাকছে

জনগণের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে, সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে

পৌঁছামাত্র বাংলাদেশীদের ভিসা দেবে চীন

ব্যারিস্টার মইনুলের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন ১০ জানুয়ারি

ঢাকায় ডেঙ্গু নিয়ে গার্ডিয়ানের প্রতিবেদন, এ বছর মারা গেছেন ১৭ জন

তৈরির পোশাক খাতের জন্য অশনি সংকেত