কার হাতে উঠছে গোল্ডেন বল?

ফিফা বিশ্বকাপ-২০১৮

স্পোর্টস ডেস্ক | ১৪ জুলাই ২০১৮, শনিবার
বিশ্বকাপের অন্যতম সেরা আকর্ষণ ‘গোল্ডেন বল’ পুরস্কার। কে হবেন এবারের আসরের সেরা খেলোয়াড়? ফাইনালের আগে সবচেয়ে উজ্জ্বল নাম বললে প্রথমেই আসতে পারে ক্রোয়েশিয়া অধিনায়ক লুকা মদরিচের নাম। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারেন ফ্রান্সের উঠতি তারকা কিলিয়ান এমবাপ্পে, বেলজিয়ান দলপতি ইডেন হ্যাজার্ড ও ইংলিশ অধিনায়ক হ্যারি কেইন। সংক্ষিপ্ত তালিকা তৈরি করে ফিফার টেকনিক্যাল কমিটি। নির্বাচিত সাংবাদিকদের ভোটে চূড়ান্ত হয় গোল্ডেন বল বিজয়ীর নাম। কার হাতে উঠছে এবারের গোল্ডেন বল?
লুকা মদরিচ
বিশ্বকাপ ইতিহাসে ক্রোয়েশিয়াকে প্রথমবার ফাইনালে তোলার মূল কারিগর লুকা মদরিচ। সেমিফাইনালে পিছিয়ে থেকেও ইংল্যান্ডকে অতিরিক্ত সময়ে ২-১ গোলে হারিয়ে মাঠ ছাড়ে মদরিচের দল। ক্রোয়াটদের হৃদস্পন্দন ৩২ বছর বয়সী মদরিচ।
মাঝমাঠ নিয়ন্ত্রণে চমৎকার পারফরম্যান্সে ফুটবলবোদ্ধাদের প্রশংসা কুড়িয়ে যাচ্ছেন রিয়াল মাদ্রিদ প্লে-মেকার। আসরে দুইটি গোল ও একটি অ্যাসিস্ট করেন মদরিচ। রিয়ালের হয়ে হ্যাটট্রিক ইউয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ জয়ের পর স্বপ্নের মতো বিশ্বকাপ কাটছে তার। শিরোপা জয় থেকে আর একটি জয় দূরে মদরিচের ক্রোয়েশিয়া। রাশিয়া বিশ্বকাপের ‘গোল্ডেন বল’ পাওয়ার অন্যতম দাবিদার নিজের প্রজন্মের অন্যতম সেরা মিডফিল্ডার লুকা মদরিচ।
কিলিয়ান এমবাপ্পে
১৯ বছরের তরুণ এমবাপ্পের হাতে সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার উঠলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। ফ্রান্সের আক্রমণভাগের ভরসার প্রতীক সম্ভাবনাময় এই ফরোয়ার্ড। দ্বিতীয় রাউন্ডে আর্জেন্টিনার বিপক্ষে গতির ঝড় তুলে চোখ ধাঁধানো পারফরম্যান্স উপহার দেন এমবাপ্পে। জোড়া গোলে লিওনেল মেসিকে আড়াল করে পুরো বিশ্বের মনোযোগ কাড়েন তিনি। কোয়ার্টার ফাইনালে উরুগুয়ে ও সেমিফাইনালে বেলজিয়ামের বিপক্ষে গোল না পেলেও প্রতিপক্ষের রক্ষণভাগে ভীতির সঞ্চার করেন এমবাপ্পে। ফাইনালে জ্বলে উঠলে এমবাপ্পের গোল্ডেন বল পাওয়ার সম্ভাবনাও বেড়ে যাবে। আগের দুই ম্যাচে গোল না পাওয়ায় ‘গোল্ডেন বুট’ জয়ের রেসে পিছিয়ে গেছেন প্যারিস সেইন্ট জার্মেই (পিএসজি) তারকা এমবাপ্পে। তার নামের পাশে ৩ গোল।
ইডেন হ্যাজার্ড
বেলজিয়ামের সোনালী প্রজন্মকে প্রথমবার বিশ্বকাপের ফাইনালে নিয়ে যেতে পারেননি ইডেন হ্যাজার্ড। ফ্রান্সের রক্ষণ দুর্গে আটকে যান। দলকে সেমিফাইনাল পর্যন্ত নিয়ে আসতে জ্বালানি হিসেবে কাজ করেন হ্যাজার্ড। পুরো আসরে নজরকাড়া পারফরম্যান্স উপহার দেন চেলসি উইঙ্গার। আসরে নিজে দুই গোল করার পাশাপাশি সতীর্থদের দিয়ে আরো দুইটি গোল করিয়েছেন হ্যাজার্ড। টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় হওয়ার লড়াইয়ে হ্যাজার্ডকে উপরের সারিতেই রাখতে হবে।
হ্যারি কেইন
১৯৯০ বিশ্বকাপের পর ইংল্যান্ডকে প্রথমবার সেমিফাইনালে নিয়ে যেতে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন হ্যারি কেইন। ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে এগিয়ে থেকেও ফাইনালের টিকিট কাটতে ব্যর্থ হয় ইংলিশরা। ৬ গোল নিয়ে টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ার পথে চালকের আসনে কেইন।
তাকে স্পর্শ করতে হলে ফাইনালে হ্যাটট্রিক করতে হবে এমবাপ্পেকে। ফ্রান্সের আরেক তারকা আন্তোইন গ্রিজম্যানও ৩ গোল করেছেন। ক্রোয়েশিয়ার কারো ২ গোলের বেশি নেই। গোল্ডেন বুট জয়ের রেসে থাকা কেইনের সেরা খেলোয়াড় হওয়ার সম্ভাবনা কমে গেছে সেমিতে বাদ পড়ায়।
চ্যাম্পিয়ন দলের কেউই যে গোল্ডেন বল জিতবেন তা বলার সুযোগ নেই। বিগত কয়েকটি আসরে সেই চিত্রই দেখা গেছে। ২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপের ফাইনালে হারলেও ‘গোল্ডেন বল’ ট্রফি ওঠে মেসির হাতে। ১৯৯৮ বিশ্বকাপে রোনালদো, ২০০২ আসরে অলিভার কান, ২০০৬ বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় হন জিনেদিন জিদান। আবার ফাইনালের আগে বিদায় নিয়েও ২০১০ বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড়ের আসনে বসেন উরুগুয়ের দিয়েগো ফোরলান। এবার সেই সুযোগ কম বলতে হবে। মূল লড়াইটা হতে পারে মদরিচ ও এমবাপ্পের মধ্যে। চ্যালেঞ্জ জানাতে পারেন ১৯৮৬ বিশ্বকাপের পর বেলজিয়ামকে প্রথমবার সেমিফাইনালে তোলা হ্যাজার্ড।
‘গোল্ডেন বল’ পুরস্কারের প্রবর্তন ১৯৮২ বিশ্বকাপে। প্রতি বিশ্বকাপ শেষেই সেরা ফুটবলার নির্বাচন করা হলেও প্রথম ১১টি আসরে ছিল না কোনো পুরস্কার। এক নজরে দেখে নিন বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড়ের তালিকা
১৯৩০ বিশ্বকাপ : হোসে নাসাজি (উরুগুয়ে)
১৯৩৪ বিশ্বকাপ : জিউসেপ্পে মেয়াজা (ইতালি)
১৯৩৮ বিশ্বকাপ : লিওনিদাস (ব্রাজিল)
১৯৫০ বিশ্বকাপ : জিজিনহো (ব্রাজিল)
১৯৫৪ বিশ্বকাপ : ফ্রাঙ্ক পুসকাস (হাঙ্গেরি)
১৯৫৮ বিশ্বকাপ : দিদি (ব্রাজিল)
১৯৬২ বিশ্বকাপ : গারিঞ্চা (ব্রাজিল)
১৯৬৬ বিশ্বকাপ : ববি চার্লটন (ইংল্যান্ড)
১৯৭০ বিশ্বকাপ : পেলে (ব্রাজিল)
১৯৭৪ বিশ্বকাপ : ইয়োহান ক্রুইফ (নেদারল্যান্ডস)
১৯৭৮ বিশ্বকাপ : মারিও কেম্পেস (আর্জেন্টিনা)
১৯৮২ বিশ্বকাপ : পাওলো রসি (ইতালি)
১৯৮৬ বিশ্বকাপ : ডিয়েগো ম্যারাডোনা (আর্জেন্টিনা)
১৯৯০ বিশ্বকাপ : সালভাতোর শিলাচি (ইতালি)
১৯৯৪ বিশ্বকাপ : রোমারিও (ব্রাজিল)
১৯৯৮ বিশ্বকাপ : রোনালদো (ব্রাজিল)
২০০২ বিশ্বকাপ : অলিভার কান (জার্মানি)
২০০৬ বিশ্বকাপ : জিনেদিন জিদান (ফ্রান্স)
২০১০ বিশ্বকাপ : ডিয়েগো ফোরলান (উরুগুয়ে)
২০১৪ বিশ্বকাপ : লিওনেল মেসি (আর্জেন্টিনা)



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

প্রধানমন্ত্রীর অনুষ্ঠানে ইসির অনাপত্তি, মুহিতকে নিষেধ

নির্বাচন পর্যবেক্ষকদের স্ট্যাটাস কী হবে জানতে চান কূটনীতিকরা

বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের উদ্বেগ

কারাগারে থেকে ভোটের প্রস্তুতি

শহিদুল আলমের জামিন

ধানের শীষে লড়বে ঐক্যফ্রন্ট

নিপুণ রায় চৌধুরী গ্রেপ্তার

আতঙ্ক উপেক্ষা করে পল্টনে ভিড়

বিশ্ব ইজতেমা স্থগিত

কুলাউড়ায় সুলতান মনসুরের বিপরীতে কে?

ঢাকার প্রচেষ্টা ব্যর্থ

নির্বাচন পেছাবে না ইসির সিদ্ধান্ত

ঝিনাইদহে ৩৭৪ মামলায় আসামি ৪১ হাজার

বিএনপি আবার আগুন সন্ত্রাস শুরু করেছে

বড় জয়ে সিরিজে সমতা

উত্তেজনায় ফুটছে বৃটিশ রাজনীতি, চার মন্ত্রীর পদত্যাগ