স্কুলছাত্রী অপহরণকারীকে গ্রেপ্তারের দাবিতে মানববন্ধন

বাংলারজমিন

শ্রীমঙ্গল (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি | ১৪ জুন ২০১৮, বৃহস্পতিবার
কুলাউড়া উপজলায় নবম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রী অপহরণকারীকে দ্রুত গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিসহ অপহৃত ওই স্কুলছাত্রীকে দ্রুত উদ্ধারের দাবিতে জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলায় মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
তরুণ সনাতনী সংঘ (টিএসএস) এর শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার উদ্যোগে আয়োজিত এ মানববন্ধন ও প্রতিবাদসভাটি গতকাল সকালে স্থানীয় ঢাকা-সিলেট ভায়া মৌলভীবাজার মহাসড়কের চৌমুহনাতে অনুষ্ঠিত হয়।
মানববন্ধনে উপজেলার বিভিন্ন ধর্মীয়, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতাকর্মীসহ নানা শ্রেণি-পেশার লোকজন অংশগ্রহণ করেন। পংকজ ভট্টাচার্যের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার সভাপতি অজয় দেব, সহসভাপতি নিপা বড়–য়া, প্রভাষিকা জলি পাল, নাট্যকর্মী নিতেশ সূত্রধর, সৌরভ আদিত্য, রবিন বিশ্বাস প্রমুখ।
প্রতিবাদ সমাবেশে বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার সভাপতি অজয় দেব বলেন, কুলাউড়ায় স্কুলছাত্রী কাকলী মল্লিককে প্রকাশ্যে অপহরণ করে অপহারণকারী রুবেল ও জুয়েলসহ তার সহযোগীরা পালিয়ে যায়। পুলিশ দুই সপ্তাহেও অপহরণকারীদের গ্রেপ্তার এবং অপহৃত কাকলী মল্লিককে উদ্ধার করতে পারেনি। তিনি আরো বলেন, কাকলীকে অপহরণের পরদিন পর্যন্ত অপহরণকারী রুবেল ও জুয়েলের পরিবারের লোকজন তাদের বাড়িতেই ছিল। ঘটনার দিন অপহরণকারীর বাড়িতে গিয়ে আসামির মা ও বোনকে বাড়িতে পেলেও তাদের ছেড়ে চলে আসে পুলিশ।
ওই দিন তাদের ধরে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে অপহরণের ঘটনা সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যেত এবং অপহরণকারীদের সহজেই গ্রেপ্তার করে কাকলীকে উদ্ধার করা সম্ভব হতো। মামলা হওয়ার পর পুলিশ অপহরণকারীর বাসায় গেলে দেখা যায়, তারা স্বপরিবারে ঘরে তালা লাগিয়ে পালিয়ে গেছে। এ ব্যাপারে পুলিশের প্রতি প্রশ্নবিদ্ধ উদ্বেগ প্রকাশ করে পুলিশের উদাসীন ভূমিকার কঠোর সমালোচনা করেন বক্তারা।
কুলাউড়া থানায় অপহৃত ওই স্কুলছাত্রীর বাবার দায়ের করা অভিযোগে জানা যায়, কাকলী নবম শ্রেণিতে লেখাপড়া করতো। সে স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে রুবেল মিয়া (২৮) নামের এক প্রতিবেশী প্রায়ই তাকে উত্ত্যক্ত করতো। এ ব্যাপারে মেয়েটির স্বজনরা রুবেলের পরিবারের সদস্যদের কাছে বিচার চেয়েও কোনো সুরাহা পায়নি। এ নিয়ে গত ৩১শে মে কাকলীর ভাইয়ের সঙ্গে রুবেলের কথা-কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে ১লা জুন রাতে রুবেল ও তার ভাই জুয়েলের নেতৃত্বে চার-পাঁচজন যুবক বিভিন্ন ধরনের অস্ত্র নিয়ে কাকলীর বাড়িতে প্রবেশ করে তার মুখে কাপড় গুঁজে টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে একটি অটোরিকশায় তুলে নিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়।
কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ শামীম মুসা বলেন, অপহৃত স্কুলছাত্রীকে উদ্ধারসহ জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তারের জন্য বিভিন্নভাবে চেষ্টা চলছে। অপহরণের কাজে ব্যবহৃত অটোরিকশাটি পরিত্যক্ত অবস্থায় কমলগঞ্জ উপজেলা থেকে জব্দ করা হয়েছে। তিনি বলেন, ঘটনার দিন একজন এসআই ঘটনাস্থলে গেলেও অপহরণের ঘটনায় জুয়েলের মা ও বোন যে জড়িত থাকতে পারেন, সেটা তিনি বুঝতে পারেননি।




এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

দুই দিনের রিমান্ডে বাসচালক

চার যুগ পরেও

ভিজিএফ’র এর চাল নিয়ে নয়-ছয়

ক্রিস্টিন ফোর্ডের যৌন হয়রানির অভিযোগ এবং...

কুড়িগ্রামে কিশোর-কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার

সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টে আরও ২০ কোটি টাকা দেবেন প্রধানমন্ত্রী

ঘরে ফিরলেন সৌদি ফেরত আরো ৪২ গৃহকর্মী

খালেদা জিয়াকে দেখতে ফের কারাগারে যাবেন আইনজীবীরা

মিয়ানমারে নিলামে উঠছে সুচির ভাস্কর্য

নাটোরে রেলের ২৫৩০ লিটার চোরাই তেলসহ আটক ৩

রাখঢাক রাখছেন না পর্নো তারকা ডানিয়েল স্টর্মি

দেশে-বিদেশে শহিদুল আলমের মুক্তি দাবি

শ্রীমঙ্গলে ডাকাত দলের হামলায় আহত ২০, মালামাল লুট

নারায়ণগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১

মিয়ানমারের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের প্রাথমিক তদন্ত শুরু আইসিসির

বিশ্বের শীর্ষ ধনীরা কেন নামকরা পত্রিকাগুলো কিনে নিচ্ছে