নিউইয়র্কে ওআইসি’র বৈঠক

নিরাপত্তা পরিষদের মাধ্যমে সহিংসতার তদন্ত এবং শান্তি প্রক্রিয়া শুরুর আহ্বান

অনলাইন

কূটনৈতিক রিপোর্টার | ১৭ মে ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ১২:৪৭ | সর্বশেষ আপডেট: ৭:৫৬
জেরুজালেমে ইসরাইলী আগ্রাসনে ফিলিস্তিনের সাধারণ নাগরিকদের ব্যাপক হতাহতের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ এবং এ বিষয়ে পরবর্তী কর্মপস্থা নির্ধারণে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশন (ওআইসি) এর রাষ্ট্রদূত পর্যায়ের এক জরুরী বৈঠক হয়েছে। ওআইসি’র নবনিযুক্ত কাউন্সিল সভাপতি বাংলাদেশের আহ্বানে গতকাল ওই সভা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়Ñ নিরাপত্তা পরিষদের মাধ্যমে ইসরাইলী সহিংসতার স্বাধীন ও স্বচ্ছ তদন্ত এবং অনতিবিলম্বে ফিলিস্তিনি শান্তি প্রক্রিয়া শুরু করার আহ্বানের মধ্য দিয়ে জরুরী সভাটি শেষ হয়। সভার শুরুতে জেরুজালেমে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস স্থানান্তরের প্রেক্ষিতে ইসরাইলের নিরাপত্তা বাহিনী দ্বারা সংঘটিত সহিংসতায় ব্যাপক হতাহতের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন ও বক্তব্য প্রদান করেন জাতিসংঘে নিযুক্ত ফিলিস্তিনের স্থায়ী পর্যবেক্ষক রাষ্ট্রদূত ড. রিয়াদ এইচ মনসুর। এছাড়া আগামী ১৮ মে তুরস্কে অনুষ্ঠেয় ওআইসি’র বিশেষ জরুরী শীর্ষ সম্মেলনের বিষয়ে সভাকে অবহিত করেন তুরস্কের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত ফেরিদুন হাদি সিনিরলিওগুলু। সভায় ওআইসিভূক্ত দেশগুলোর স্থায়ী প্রতিনিধিগণ ফিলিস্তিনের সাধারণ নাগরিকদের উপর ইসরাইলের অমানবিক ও অযাচিত সহিংসতার তীব্র নিন্দা জানান।
সভায় উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবিলায় পরবর্তী করণীয় কী হতে পারে সে বিষয়েও আলোকপাত করা হয়। সভায় নিরাপত্তা পরিষদের মাধ্যমে সাম্প্রতিক সহিংস ঘটনাগুলোর আন্তর্জাতিক স্বাধীন ও নিরপেক্ষ চাওয়া হয়। এছাড়া সুইজারল্যান্ডের জেনেভাতে আগামী ১৮ মে অনুষ্ঠিতব্য মানবাধিকার কমিশনের জরুরী সভায় এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়। দূতাবাস স্থানান্তরের বিতর্কিত সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রশাসনকে ওআইসি’র পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো এবং অন্য কোন সদস্য রাষ্ট্র যাতে যুক্তরাষ্ট্রকে অনুসরণ না করে সে বিষয়ে কূটনৈতিকভাবে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়েও সভায় আলোচনা হয়।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন