সরাইলে বৃদ্ধ খুন

বাংলারজমিন

সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি | ১৭ মে ২০১৮, বৃহস্পতিবার
ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী বৃদ্ধ আবদুল খালেক (৫৫)। বাড়ি উপজেলার পল্লী এলাকা পাকশিমুলের ব্রাহ্মণগাঁও গ্রামে। অনেক কষ্টে বড় ছেলে শাহ আলমকে পাঠিয়েছেন প্রবাসে। সংসারের কষ্ট দূর করতে আরেক ছেলে শফিক আলমকে (২৪) বিদেশ পাঠানোর স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন ৩ বছর আগে। ছেলেকে বিদেশ পাঠাতে আপন চাচাত ভাই আবদুল কুদ্দুছের (৬০) সহায়তা নেন। কুদ্দুছের ভাগ্নির জামাতা চুন্টার পালপাড়ার মকবুল থাকেন মালদ্বীপে।
কুদ্দুছের মাধ্যমে শফিককে মালদ্বীপ নেয়ার জন্য মকবুলকে টাকা দেন খালেক। দুই বছর হলো। শফিককে বিদেশ নিচ্ছেন না। টাকাও ফেরৎ দিচ্ছেন না। শুধু তারিখ দিয়ে ঘুরাচ্ছেন। একাধিক সালিশ হয়েছে। হয়েছে মামলাও। এ ঘটনার জের ধরেই গত মঙ্গলবার বিকেলে আবদুল কুদ্দুছ ও খালেকের পরিবারের সদস্যদের মধ্যে মারধরের ঘটনা ঘটে। আহত অবস্থায় জেলা সদর হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় খালেক মারা যায়। ছেলেকে বিদেশ পাঠানোর স্বপ্ন অপূরণীয়ই থেকে গেল খালেকের। গতকাল পুলিশ কুদ্দুছের স্ত্রী আনোয়ারা বেগমকে (৫৪) গ্রেপ্তার করেছে। সরাইল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মফিজ উদ্দিন ভূঁইয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বিদেশ পাঠানোর টাকা ও জায়গা জমির বিরোধে তাদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে মামলা মোকদ্দমা চলে আসছিল।
গত মঙ্গলবার বিকেলে ২ পরিবারের মারামারির ঘটনায় আহত খালেক জেলা সদর হাসপাতালে মারা গেছেন। ময়না তদন্তের পক্রিয়া চলছে। এখনো মামলা হয়নি।    

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ফিলিস্তিনের পক্ষে কেন সোচ্চার শিখ তরুণরা?

সৌদিতে যৌন নির্যাতন: পালিয়ে বাঁচা বাংলাদেশি নারীদের মুখে নিপীড়নের বর্ণনা

ট্রাম্প প্রশাসনের রাডারে ঢাকার মার্কিন নীতি

খালেদার জামিন আবেদনের শুনানি শুরু

‘বন্দুকযুদ্ধ’ চলছেই

খুলনা ‘শান্তিপূর্ণ কারচুপির’ নির্বাচনের নতুন মডেল

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অসঙ্গতি দূর করার আশ্বাস

কাজ শুরুর আগেই ব্যয় বাড়লো পদ্মা রেল সংযোগ প্রকল্পের

নাজিব রাজাককে দীর্ঘ জিজ্ঞাসাবাদ

রাতারাতি সব কাজ করা সম্ভব নয়

প্রিয়াঙ্কা চোপড়াকে কাছে পেয়ে আপ্লুত রোহিঙ্গা কিশোরীরা

বিএনপিতে নানা চিন্তা

বিলবোর্ড সরানোর প্রতিবাদে বুলবুলের অবস্থান কর্মসূচি

‘ইলিয়াস আলীর বাসায় গভীর রাতে পুলিশ’

খুলনা ‘শান্তিপূর্ন কারচুপির’ নির্বাচনের নতুন মডেল, ইসি ব্যর্থ

ভারতের উদ্দেশে ‘তাজউদ্দীন’র যাত্রা শুরু