কোটা সংস্কার নিয়ে আপনার মতামত দিন

অনলাইন

| ২১ মার্চ ২০১৮, বুধবার, ৩:০৯ | সর্বশেষ আপডেট: ১২:১৭
পক্ষে-বিপক্ষে নানা মত। আপনার মতামত কী? আপনি কি বিদ্যমান কোটা ব্যবস্থার সংস্কার চান। চাইলে কেন চান? আপনি কি কোটা ব্যবস্থা বহালের পক্ষে। আপনার যুক্তিইবা কী? লিখুন আমাদের। সর্বোচ্চ দেড়শ’ শব্দের মধ্যে। সম্ভব হলে আপনার ছবিসহ লেখা পাঠাতে পারেন sajidhoque@gmail.com এই ঠিকানায়।
অথবা আমাদের ফেসবুক পেইজে এই নিউজের লিঙ্কের নিচে আপনার মতামত দিতে পারেন। অথবা এই নিউজ লিঙ্কের ‘কমেন্ট’ অপশনে গিয়েও মন্তব্য করতে পারেন। নির্বাচিত মতামত প্রকাশ করবো আমরা।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Mehedi hasab

২০১৮-০৩-২৩ ০৩:০৯:৪৪

চাই ন া

Mohammad Tohin Hossa

২০১৮-০৩-২৩ ০২:২৭:১১

দেশে বেকার বেড়ে চলছে আর কোটার কারনে ব্যাংক, প্রথমশ্রেনীর চাকরির পদ খালি থাকছে। এতে দেশের ক্ষতি হচ্ছে আর হচ্ছে কম মেধা সম্পন্ন লোকের পদচারনা গুরুত্ব পূর্ন পদে। কোটার একটি যোক্তিক সংস্কের অবশ্যই প্রয়োজন।

abdul kader

২০১৮-০৩-২২ ২১:৫৭:৪৬

no need quota? freedom fighter not fighting for quota .............. country need the right person in right places.

জাহিদ

২০১৮-০৩-২২ ২১:১৯:২৪

মতামত আর কি দিব প্রধানমন্ত্রীতো বলে দিয়েছেন কোটা ব্যবস্হা থাকবে।এখন আন্দোলন করা ছাড়া বিকল্প পথ নাই।

করিম

২০১৮-০৩-২২ ০৬:৫৪:৪০

মেধাবীদের অধিকার হরণ করা হচ্ছে!

আমিনুর রহমান

২০১৮-০৩-২২ ১৮:৫৯:০১

যারা কোটা বাতিলের জন্য লম্ফঝম্ফ করে তারা জানে না এটা প্রতিবন্ধকতা নয়, বরং মেধাবীদের জন্য প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে যে কারণগুলো তার অন্যতম হলও- ঘুষ, দুর্নীতি, অনিয়ম, স্বজনপ্রীতি ও প্রশ্ন ফাঁস। মেধা কোটার অধিকাংশই 'ঘুষ, দুর্নীতি, অনিয়ম, স্বজনপ্রীতি ও প্রশ্ন ফাঁস' নামক অলিখিত কোটার পেটে যাচ্ছে। ওটা রাতখানারা দেখে না। এছাড়া চাকরির বয়স নামক অযৌক্তিক বেড়ায় আটকে আছে লাখ লাখ যোগ্য ও মেধাবীমুখ। তাই আসুন, ঘুষ, দুর্নীতি, অনিয়ম, স্বজনপ্রীতি ও প্রশ্ন ফাঁস মুক্ত সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ নিয়োগ প্রক্রিয়া ও ৩০ বছরের বেড়া ভাঙতে সচেতন ও সক্রিয় হই।

Saber mia.

২০১৮-০৩-২২ ০৫:২৬:৪৬

Finally need finish quata system.because Hasina said every families one person give job but we are seven brother not only one job find.even hole family why.....

Abubakar Chowdhury

২০১৮-০৩-২২ ০৪:৪০:১১

We support merit

Ali muddin

২০১৮-০৩-২২ ০১:৪৯:১৭

kota chi na.

M M Rahman

২০১৮-০৩-২২ ০১:১৫:৫২

Merit based recruitment only can help to to grow a developed ĺ nation and country.

আকতারুজজামান আপন

২০১৮-০৩-২২ ০১:০১:১৪

দেশের জন্য জনগন,আর জনগন এর জন্য সরকার, সরকার যদি এই কথা চিনতা করেন।তাহলে কোটা সংস্কার দরকার।

আফরোজ ইসলাম

২০১৮-০৩-২২ ০০:৪৪:৩৪

মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান দেখানো এবং তাদের পরিবারকে যথাযথ সুযোগ সুবিধা দেওয়া যেমন সরকারের দায়িত্ব ঠিক তেমনি মেধার ভিত্তিতে কর্মসংস্থানের ব্যবসস্থা করাও সরকারের কর্তব্য। মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারকে যথাযথ সুযোগ দিতে গিয়ে তাদের সন্তান ও নাতি-নাতনিদের কোটা দেওয়ার প্রয়োজন আছে, তবে তা সহনীয় পর্যায়। পৃথীবিতে হয়তো এমন কোন দেশ খুজেঁ পাওয়া যাবে না যেখানে মোট ৫৬ শতাংশ কোটা। কোটার কারনে শিক্ষা জীবনেই হোচট খেতে হয় মেধাবী শিক্ষার্থীদের। দেশের পালিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেও অর্ধেকের বেশি কোটা। অন্যদিকে কোন একটি দেশের সরকারী কার্যক্রম পরিচালনাকারীদের ৫৬ ভাগ যদি মেধার পরীক্ষায় উত্তির্ন না হয়ে শুধু কোটার বলে সুযোগ পায়, তাহলে সে দেশের আর যাই হোক উন্নয়নের স্বাভাবিক ধারা বজায় থাকতে পারে না। মুক্তিযোদ্ধা কোটাে রাখা হোক, কিন্তু তা ১৫% এর বেশি হওয়া উচিৎ না। সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে, মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য দেওয়া সুযোগ সুবিধা কি আসলেই সঠিক মুক্তিযোদ্ধারা পাচ্ছে ? ৪৭ বছর আগে মুক্তিযুদ্ধ হয়েছে। সে হিসেবে বয়সজনিত কারনে মৃত্যুর ফলে প্রতি বছর মুক্তিযোদ্ধা কমার কথা, এটাই সত্য। কিন্তু যখনই মুক্তিযোদ্ধাদের নামের তালিকা হালনাগাদ হয়, তখনই মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা বাড়ে ! নিজি ইউনিয়নের ঘটনা বলি- মুরব্বিদের কাছ থেকে যতটুকু শুনেছি তাতে আমার এলাকায় কয়েক’শ মুক্তিযোদ্ধা থাকার কথা, কিন্তু সেখানে বর্তমানে হাজার হাজার মুক্তিযোদ্ধা। এবং এদের অনেকের জন্ম ৭১ এর পর। বাকিদের কথা বলছি না, আমার এক চাচা কয়েক বছর হলো মুক্তিযোদ্ধা হয়েছে, যে নিজেই বলতো যুদ্ধের সময় তার বয়স ৩-৪ বছর ছিলো। আর বাকি কোটা বন্ধ করা হচ্ছে না কোন যুক্তিতে। একজন উপজাতি যেমন দেশের একজন সাধারন নাগরিক, তেমনি একজন মুসলিম বা হিন্দুও সাধারন নাগরিক। তহলে উপজাতিদের কোটা দিতে হবে কেন ? সকলের মেধার সমান বিচার করা উচিৎ। আর পোষ্য কোটাই বা কেন ? যোগ্যতার বিচারে চাকরি হওয়া উচিৎ, বাপ-দাদার নামে না। ৫৬% কোটা আমাদের এমন একটা সমাজ তৈরির দিকে নিয়ে যাচ্ছে যেখানে নির্বোধদের আদেশ মানতে মেধাবীরা বাধ্য থাকবে, যদিও তারা জানবে এসব পদক্ষেপ ভুল। কিন্তু তাদের কিছু করার থাকবে না, কারন তারা নির্বোধদের অধীনস্থ। সর্বশেষ কথা, যে দেশে লাখ লাখ যুবক বেকার, সে দেশে ৫৬% কোটা থাকতে পারে না।

kazi

২০১৮-০৩-২১ ২৩:৪০:৫২

কোটা ব্যবস্তা একই যোগ্যতা সম্পন্ন দুই প্রার্থীর ক্ষেত্রে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে প্রযোজ্য হতে পারে। অযোগ্য উত্তরাধিকারীর জন্য কোন বিশেষ চাকুরি কোটা বরাদ্ধ থাকতে পারে না। এতে দেশের প্রশাসন মেধা শূন্য হয়ে পড়বে।

সায়েম

২০১৮-০৩-২২ ১১:২৫:২১

যোগ্য প্রশসন গড়ে তোলার জন্য মেধার বিকল্প কোটা হতে পারে ?? একটি দেশের কোটা ৫-১০% হতে পারে কিন্তু ৫৬%!!!!!!!

সরকার মোমেনূর রহমান

২০১৮-০৩-২২ ০৯:৫৭:৫৭

অতিরিক্ত কোন কিছুই ভালো নয় । কোটা ব্যবস্থাটা এখন সত্যিই অতিরিক্তের পর্যায়ে পড়ে গেছে ! কোটা আর মেধা দুটোই ভিন্ন জিনিস । বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোর দিকে তাকালে আমরা এমনটা দেখতে পাই না ! তাহলে আমাদের মতো ৩য় বিশ্বের একটা দেশে এমন ব্যবস্থা কেন ? সুতরাং সময় এসেছে এ ব্যবস্থাটাকে সংস্কার করার ! দয়া করে এটাকে সংস্কার করে দেশটাকে প্রকৃত মেধাবীদের অভয়ারণ্যে পরিণত করুন ! না হলে দেশে শুধুই কোটাধারী মেধাবীদের দেখা যাবে । আর সাধারণ মানুষেরা সুশিক্ষা গ্রহণ করতেই চাইবে না ! স্কুল-কলেজগুলোতে শুধুই কোটাধারী ছাত্র-ছাত্রীদেরই পড়তে হবে .........

সৈয়দ রবিউল ইসলাম

২০১৮-০৩-২২ ০৯:৪৬:৪৬

কোটা ব্যবস্থা সংযোজন করা হয়েছিল অনগ্রসর জনগোস্টীকে এগিয়ে আনার জন্য। এ ব্যবস্থা ছিল একটি মহতী উদ্যোগ। কিন্ত সময়ের পরিক্রমায় এখন সেই পরিস্থিতি দেশে নেই। মুক্তিযোদ্ধারা জাতির সেরা সন্তান তাঁদের অবশ্যই মর্যাদা এবং সুযোগ সবিধা নিশ্চিত করতে হবে। মুক্তিযোদ্ধাদের অন্যান্য সুবিধা বাড়িয়ে তাঁদের কোটা হালনাগাদ করা যায়। উপজাতিদের অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। তাঁদের কোটা যৌক্তিক করা যায়। মহিলাদের অবস্থার অনেক উন্নতি হয়েছে। মহিলা কোটা যৌক্তিক করা যায়। প্রতিবন্ধি কোটার আবশ্যকতা আছে। কেন মেধা কোটা বৃদ্ধি করা দরকার। ক। মেধাবীরা তাঁদের মেধা খাটিয়ে নতুন কৌশল বের করে জনসেবা নিশ্চিত করতে পারে। খ। মেধাবীরা ভাল জায়গা পোস্টিং বা অন্যন্য সুবিধার জন্য তদবির কম করে। গ। যারা কোটায় চাকুরী পায় তাঁদের নানা মাধ্যমে কোটা প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে হয়। তাই তাঁদের পরবর্তিতে ঐ লোকদের সেবাকে অগ্রাধিকার দিতে হয় বা তাঁদের খুশি করতে হয়। ঘ।মেধাবিরা জনহয়রানি কম করে নিজেকে জনসেবায় অধিক সময় ব্যয় করে থাকে। ঙ।কোটা ব্যবস্থার কারনে দেশে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা বেড়ে গেছে।

মহি উদ্দিন ভুঁঞা

২০১৮-০৩-২২ ০৯:৩৩:৩৬

কোটা প্রথা একটি যৌতুকের মত, কোটা দেশকে মেধা শূণ্য করছে, মেধাকে অগ্রাধিকার দিন, কোটা প্রথা বাতিল করুন, দেশকে এগিয়ে নিন। সোনার বাংলা গড়ুন। ইনশাআল্লাহ সোনার বাংলা এগিয়ে যাবে।

S. Alam

২০১৮-০৩-২২ ০৯:০৬:৪৯

কোটা পদ্ধতির একটা বড় বাজে দিক হচ্ছে, অসংখ্য মেধাবী মানুষ এর ফলে দেশ সেবায় নিজের মেধা, যোগ্যতাকে কাজে লাগাতে পারছে না। মেধার মূল্যায়ন যে দেশে হয় না, সে দেশে মেধাবী মানুষের জন্ম হবে না। দেশের মেধার একটা বড় অংশ তখন বাধ্য হয়ে দেশের বাইরে চলে যাবে। ক্ষতি তো আলটিমেটলি দেশের। আমার বিশ্বাস ১৯৭১ এ আমাদের মুক্তিযোদ্ধারা, তাদের সন্তান, নাতিপুতি সহজে সরকারী চাকরি পাবে, এই নিয়্যতে দেশ স্বাধীন করার জন্য প্রাণ বিসর্জন দেন নি, বা যুদ্ধ করেননি। দেশ মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের মর্যাদা দিয়েছে, তাদের সন্তানদের মর্যাদা দেয়ার কোন দরকার আছে বলে মনে করি না। এসব করে দেশের মানুষের মধ্যে বিভেদ বাড়ানো হচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধ এবং মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি মানুষের সম্মানকে হেয় করার চেষ্টা করা হচ্ছে। যোগ্যরাই দেশ চালাক, সেই স্বপ্ন থেকেই কোটা পদ্ধতির সংস্কার চাই।

অ্যাডভোকেট আমিন আহমে

২০১৮-০৩-২১ ১৮:৫০:০৩

৫৬% কোটা ? ভাবা যায়! একটা সভ্য সুশিক্ষিত সমাজে এভাবে মেধার কবর রচনা হতে দেয়া যায়না। মেধাবীরা সুযোগ না পেলে মেধা পাচার হবেই। এতে পিছাবে দেশ, পিছাবে জাতি। আমরা পিছাতে চাইনা, এগিয়ে যেতে চাই দুর্বার গতিতে। তাই কোটা ব্যাবস্থার সংস্কার অতীব জরুরী।

kamrul

২০১৮-০৩-২১ ১৫:৩৭:৩৪

কোটা ব্যবস্থা আমার কাছে বিষের মতো। আমি এটাকে চরম ঘৃণা করি। কারণ, এর দ্বারা মেধাবীদের ধ্বংস করা হচ্ছে।

আবুল হাসনাত, বাঘা, গ

২০১৮-০৩-২১ ১২:৪৪:২১

কোটা প্রথা সাময়িক বিষয়, কিন্ত আমাদের দেশে মনে হচ্ছে চিরস্তায়ী ব্যাবস্তা। যদি সার্বিক বিবেচনায় রাখতে হয় তাহলে সর্বোউচ্চ ২৫% বেশি নয়।

Nur alam mamun

২০১৮-০৩-২১ ১২:১৭:৩১

মেধাবী এবং আগামীর সুন্দর ভবিষ্যতের জন্য কৌটা একান্ত জরুরী।

Md Amlak Ali

২০১৮-০৩-২১ ১০:৪০:৩৫

কোটা মুক্ত বাংলাদেশ অবশ্যই চাই,সেই সাথে চাই ঘুষ মুক্ত চাকরী।

Naz

২০১৮-০৩-২১ ১০:৩২:৪৯

There should not be any quota. Only merit will be appreciated. In the long run , we are insulting muktijodhha by giving such biased quota to their grandchildren. Did they fight for the country selflessly or for this quota depriving meritorious students?

Dr majid

২০১৮-০৩-২১ ০৮:৫৭:৪৩

Shoud be closed kota sestem

Abdul kader

২০১৮-০৩-২১ ০৮:৫৩:৩২

it is against the fundamental right of a citizen

Shafikul Islam

২০১৮-০৩-২১ ০৭:১৯:২২

কোটার কারনে স্বাধীন দেশে নিজেকে পরাধীন মনে হয়

kazi anisur rahman

২০১৮-০৩-২১ ০৬:৩৮:৩৫

it destroy our all kinds of achievement.

সামিরুল ইসলাম

২০১৮-০৩-২১ ০৬:০৯:৫১

প্রথমত মেধাবী প্রার্থীদের চরম ভাবে বঞ্চিত করা হচ্ছে, যেটা সম্পূর্ণ অনৈতিক। মেধাবীদের অবমূল্যায়ন করে দেশকে এগিয়ে নেওয়া একেবারেই অসম্ভব। দ্বিতীয়ত কোটা পদ্ধতি আমাদের মহান সংবিধানের সাথে শতভাগ সাংঘর্ষিক যেটা আমরা যুগের পর যুগ টানতে পারিনা। তবে জনসংখ্যার ঘনত্ব অনুযায়ী শুধুমাত্র জেলা কোটা রাখা যেতে পারে।

MOMTAZ

২০১৮-০৩-২১ ১৯:০৮:৫৩

কোটা নয় মেধাভিওিক চায়।

রাকিব ইমন

২০১৮-০৩-২১ ০৫:৫৭:১৯

কোটা প্রথার কারণে লক্ষ লক্ষ মেধাবীরা সরকারী চাকরি থেকে বঞ্চিত হয়ে বেকার,মানবেতর জীবন যাপন করছে। আমি কোটা প্রথা বাতিল চাই।

md ashikur rahman

২০১৮-০৩-২১ ০৫:৫৩:৪২

kuta rohito howk ata amar mot

মোহাম্মদ ইউসুফ

২০১৮-০৩-২১ ০৫:৩১:১০

বৈষম্য প্রশমিত করার প্রত্যয় নিয়ে কোটা পদ্ধতি চালু হলেও এখন 'কোটা ' পদ্ধতিই বৈষম্যের কারণ হয়ে দাড়িয়েছে! যে রাষ্ট্র প্রতিবন্ধীদের দায়িত্ব নিতে পারে কিন্তু মেধাবীদের দায়িত্ব নিতে পারেনা সেই দেশে মেধাবীর জম্মই অবান্তর নয় কি? বাংলাদেশ যতদিন ধরনীতে থাকবে ততদিন ঋন শোধ করেও মুক্তিযোদ্ধাদের ঋন কখনোই শোধ হবার নয়।তাই ওনাদের সন্তানদের কোটা বলবৎ থাকুক কিন্তু নাতি /নাতনীদের নয়। প্রয়োজনে ওনাদেরকে রাষ্টীয় কোষাগার থেকে আর্থিকভাবে সহযোগিতা করা হোক।তবুও মেধার জায়গায় মোটা মাথা কাম্য নয়। আমাদের বিশাল হৃদয়ের বীর সেনানীরাও নিজেদেরকে দেশপ্রেমে উৎস্বর্গ করার সময়েও হয়তো মেধাহীন (মেরুদণ্ডহীন) জাতি কখনও কামনা করেননি।মুলত সত্তর এর নির্বাচনে আওয়ামীলীগ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের পরও তৎকালীন ক্ষমতাসীন পাকিস্তানিরা রাষ্ট্র ক্ষমতা হস্তান্তর করেনি বলেই মুক্তিযোদ্ধের সুচনা।তৎকালীন নির্বাচনে রেজিস্টার্ড কৃত প্রায় 'দুই লক্ষ 'মুক্তি যোদ্ধাদের বাইরে যারা ভোট দিয় আওয়ামীলীগের বিজয় নিশ্চিত করতে ভুমিকা রেখেছিলেন তাদেঁর উত্তরাধিকারিরাও কোটা পদ্ধতির কারনে বৈষম্যের স্বীকার হচ্ছে।যদিও তারাও অন্তর থেকেই মুক্তিকামীদের অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। অতএব এখন সময়ের দাবি সবরকম কোটা সংস্কার করা এবং আবশ্যক।

MSH Chowdhury

২০১৮-০৩-২১ ০৫:২২:১৯

Quata system to be removed because the country need the right merit person in right places. The successful management is one where right people are placed in right place. So to encourage the merit young generation, to get right people in right places and to develop the country we should give employment based on merit not based on quata.

জুয়েল রানা

২০১৮-০৩-২১ ০৫:২১:৫৪

আমি কোটা পদ্ধতিকে চরম ঘৃনা করি। কোটা সংস্কারের পাশাপাশি আরো বলতে চাই, চাকুরির ক্ষেত্রে মামা, খালু, দুলাভাই এমনকি দালাল ঘুসখোরদের হাত থেকে যোগ্য মেধাবীদের রক্ষা করার জন্য অনুরোধ করছি।

Sk.lokman.hossain

২০১৮-০৩-২১ ০৫:১২:৫২

বর্তমান শেখ হাসিনার সরকারের দেশের শিক্ষার সাথে সব কিছুর উন্নয়ন হচ্ছে। একজন ব্যক্তির লেখাপড়া শেষ করতে কমপক্ষে 30 বছর সময় লাগে। তার জন্য বাবা মার যে কতটুকু শ্রম দিতে হয় তা লেখা পড়া যাহারা করান তাহারাই ভাল ভাবেই জানেন। তার পর যদি সেই সন্তানের চাকরি না হয়। তা হলে সেই সন্তানের করার আর কী আছে। তখনই তাহারা খারাপ পথে চলে যায়।আর যদি লেখা পড়াশেষে চাকরি হয়ে যায় তা হলে তার কোনো খারাপ চিন্তা মাথায় থাকে না। তাই আমার অনুরোধ বর্তমান সরকার তাদে চিন্তা করে সবাইর জন্য চাকরির ব্যবস্থা টুকু করেন।

আনোয়ার আহমেদ

২০১৮-০৩-২১ ০৫:০৭:৩৬

কোটা ব্যাবস্থা উঠিয়ে দিয়ে মেধার বিকাশ ঘটানোর সুযোগ দেওয়া উচিৎ! এভাবে চললে মেধা ধ্বংশ হয়ে যাবে।

Nazmul Hassan

২০১৮-০৩-২১ ১৭:৫৮:০৪

Muktijoddha কোটা ব্যবস্থা অবশ্যই থাকা উচিত,কিন্তু সেটা তৃতীয় এবং চতুর্থ শ্রেণী কর্মচারীর জন্য। বিসিএস শুধু মেধাবীদের জন্য।এখানে কোনো কম্প্রোমাইসে যাওয়া যাবে না।

সাফাযেত

২০১৮-০৩-২১ ০৪:৫০:৩৮

বর্তমানে কোনও ভাবেই কোটা কে গ্রহন করা সম্ভব না, স্বাধীনতার 47 বছর পর আমরা কেন কোটার কারনে বঞ্চিত হব,

Akram Hossain

২০১৮-০৩-২১ ১৭:০৮:১৯

আমার মনে হয় যেহেতু প্রতিটি সরকারি প্রতিষ্ঠানেই পর্যাপ্ত সংখ্যক লোকবলের অভাব। তাই কোটার সাথে সাথে মেধাভিত্তিক নিয়োগের ক্ষেত্রে কোটা এর দ্বিগুণ পরিমাণ লোকবল নিয়োগ দিয়ে প্রতিষ্ঠানগুলোকে সঠিকভাবে পরিচালনা করলে হয়তো কাজ-কর্ম সঠিকভাবে সম্পাদিত হবে। কারণ প্রায়ই শোনা যায় লোকবলের কারণে কার্য সম্পাদন যথাসময়ে সম্পন্ন হয় না। তাই প্রথমেই বিবেচনা করা উচিত প্রতিষ্ঠানের কার্যপরিধি এবং পরে বিবেচনা করা উচিত কি পরিমাণ লোকবলের দরকার অতঃপর কোনরকম গড়িমসি না করে নিয়োগ প্রক্রিয়ায় জটিলতা দূর করে একটি আধুনিক ও দ্রুত সেবাভিত্তিক প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা। যা কিনা জনগণ তথা দেশের কল্যাণ বয়ে আনবে। কারণ নামে প্রতিষ্ঠান থাকলেই হবে না। প্রতি প্রতিষ্ঠানেরই বছর শেষে অর্জন, সমাধান, চলতি সেবাসমূহের হিসাব, পরবর্তী পদক্ষেপ এসবেরই হিসাব দিয়ে প্রতিষ্ঠানটি টিকিয়ে রাখতে হবে। সহজ ভাষায় বলা যায় জবাবদিহীতা ও স্বচ্ছতা।

টিএম সোহাগ

২০১৮-০৩-২১ ১৭:০৫:১৯

আমার কাছে যৌতুক প্রথা যেমন , চাকুরির ক্ষেত্রে ৫৬% কোটা ব্যবস্থা তেমন ...................................................................

md wasim

২০১৮-০৩-২১ ০৩:৪৭:২৩

কোটা ব্যবস্থা সংস্কার কেন জরুরী.. বর্তমানে কোটা ব্যবস্থা অনগ্রসরকে আরো অনগ্রসর করার এক নীল নকশা বলে আমি মনে করি। কারণ, পোষ্য ও মুক্তিযোদ্ধা কোটার কোন সাংবিধানিক ভিত্তি নেই এবং এটি সংবিধানের সরাসরি সাংঘর্ষিক। জেলা কোটাও বর্তমানে এক শ্রেণির সুবিধাই প্রকাশ করে.. যেমন, ঢাকা জেলা.. ৮.৩৬% অন্যদিকে দরিদ্র কুড়িগ্রাম.. ১.৪৪% বান্দরবন.. ০.২৭%.. উপজাতি কোটার প্রয়োজন আছে তবে এত বেশি নয়.. যেমন.. ১.১৩% এর জন্য... ৫% কোটা.. যা সংস্কার জরুরি.. নারী কোটা সংস্কার করে একটু কমানো উচিত বলে আমি মনে করি.. আর প্রাইমারি শিক্ষাকে ধংব্স করতে না চাইলে এর নিয়োগ বিধি সম্পূর্ণ রুপে সংস্কার করা উচিত বলে আমি মনে করি। আর অন্যান্য কোটা বাতিল করা সময়ের সাথে অগ্রগতি সাধনের অন্যতম পথই নির্দেশ করবে বলে আশা করি। অতএব, উপর মহলের কাছে দাবি থাকবে ছাত্রদের ন্যায্য দাবি মেনে নিন। বঙ্গবন্ধু তো কোটা প্রথার ঘোর বিরোধী ছিলেন, যা তাঁর অসমাপ্ত আত্মজীবনী -তে স্পষ্ট হয়ে উঠে।

Aminul islam

২০১৮-০৩-২১ ১৬:৪৬:০৪

কোটা নয় মেধাভিওি চায়। কোটা দ্বারা মেধাবীদের ধ্বংস করা

মীর নজরুল

২০১৮-০৩-২১ ০৩:৪৩:৪০

কোটা প্রথা বিলীন করা উচিত। চাকুরীর ক্ষেত্রে মেধা আর যোগ্যতার পরিক্ষায় যারা নির্বাচিত হয়ে আসবে তারাই প্রকৃত যোগ্য।

Sanjay halder

২০১৮-০৩-২১ ০৩:৩৫:৪২

I Hate quota system extremely.

শফিক আহমেদ

২০১৮-০৩-২১ ০৩:২৭:৩৩

বর্তমান বিশ্বায়নের যুগে দেশকে বা একটা জাতীকে এগিয়ে নিতে মেধার বিকল্প আরো বেশি মেধা । খুব সাদমাটা ভাবে দেখলে জাতীয় বাজেটের উন্নয়ন ব্যয়ের একটা বৃহত্তম অংশ প্রতি বছর অব্যয়িত থাকতে দেখা যাচ্ছে আর যা ব্যয় হচ্ছে সেটাও পুরোই দুর্নীতি আর অপব্যয় ছাড়া কিছুই নয় । নব্বইয়ের পর থেকে গৃহিত সরকারি বড় বড় উন্নয়ন প্রকল্প (ছাগল পালন, আবাসন, টিএলএম, একটি বাড়ি একটি খামার, ন্যাশনাল সার্ভিস, যুব উন্নয়ন, সমবায়, মহিলা বিষয়ক ইত্যাদি সব দলের সময়েই) প্রকৃত পক্ষে কতটা সফল তা ঐ প্রকল্পের সংশ্লিষ্ট সবাই ভালো করে জানে । অথচ এই মেগা প্রকল্প গুলি জনগনের ট্যাক্সের টাকা ব্যয় করা হয়েছে । সরকারের আন্তরিকতা ছিল না এমনটা কিন্তু নয় ।সব সরকারই চায় তার সুনাম করতে । কিন্তু মুল বাঁধা হলো সরকারের প্রশাসন যন্ত্রের অদক্ষতা বা মেধার স্বল্পতা । এই সমস্যার শিকড় হলো সরকারি নিয়োগে কোঠা প্রয়োগ । এবং পদোন্নতির ক্ষেত্রে (নিয়োগ পাওয়ার পর হাফ অথবা অসার্টিফিকেঠধারী ফুল পাগল হলেও) নিয়োগকালিন পিএসসির জ্যেষ্ঠতা তালিকা অনুসরণ করা । আমার ব্যক্তিগত অভিমত নিয়োগ ঊ পদোন্নতির ক্ষেত্রে মেধা ছাড়া অন্য কোন কোঠা থাকবে না । সি: সহ: সচিব থেকে সচিব পর্যন্ত সকল পদোন্নতি পিএসসির দ্বারা উন্মুক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে (সম পর্যায়ের সব ক্যাডার ও ননক্যাডার কর্মকর্তার অংশগ্রহণের সুযোগ থাকবে) দিতে হবে । প্রতি বছর সকল সরকারি কর্মকর্তার সম্পদের হিসাব দুদকে জমা দিতে হবে । ইনশাআল্লাহ সোনার বাংলা এগিয়ে যাবে ।

Saiful islam

২০১৮-০৩-২১ ০৩:১৬:২৭

কোটা নয় মেধাভিওি চায়।

আল হাছনাত

২০১৮-০৩-২১ ০৩:১৫:৩৪

কোটা সংস্কার জরুরী কিন্তু সরকার মনেহয় সংস্কার করবে না কারন, এতগুলো আন্দোনলের পরেও কোন বিবৃতি দিল না যেটা তরুনের জন্য খুবেই বেদনাদায়ক। সরকার কিসের জন্য সংস্কার করছে না এটা আমাদের জানা নেই কিন্তু সংস্কার না কারার পিছনে যে সরকারের দূর্বলতা আছে সেটা নিশ্চিত। সরকারের ডত বড়ই দূর্বলতা থাকনা কেন তরুনদের এভাবে হতাশ করার কোন প্রশ্নই আসে না। আর সর্বচ্চ ৩% মানুষ ৭১ এর পরে থেকে আজ পযন্ত্য প্রায় ৫০ বছর ৫৬%-৭০% কোটা ভোগ করে আসছে। এই ৩% পিছিয়ে পড়া জাতি আজ এতটাই এগিয়ে যে আজকেই যদি কোটা বন্ধ করে দেয়া হয় তবে ৯৭% মানুষ তাদের সমান হতে ১০০ বছরেরো বেশি সময় লাগবে। এর পরো যদি সরকার বলে ৩% এখনো পিছিয়ে আছে তবে এই৩% কে আগামি ৫০০ বছর ১০০% কোটা প্রদান করলেও তারা তাদের অবস্থার উন্নয়ন করতে পারবে না। ৭১ সালের সার্ভের কাগজ দেখে আজো কোটা প্রদান করা কখনই যুক্তিসই নয়। আমরা চাই নতুন করে সার্ভে করে কোটা সংস্কার করা হোক, আজ ৯৭% জনগন পিছিয়ে পরা জাতিতে পরিনত হয়েছে। আমরা চাই নতুন করে সার্ভে করে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা বাতিল পূর্বক কোটার যৌক্তিক সংস্কার করা হোক। বিঃদ্রঃ আমি জামায়াত বিএনপি বা আওয়ামিলীগ নয়। আমি নিরপেক্ষ তাই নিরপেক্ষ মন্তব্য করেছি।

শেখ আব্দুল মালেক

২০১৮-০৩-২১ ১৫:৪৫:৫৭

দেশ প্রকৃত মেধাবী আমলা পাচ্ছেনা। দ্বিতীয়/তৃতীয় শ্রনীর লোক প্রথম শ্রেনীর চাকরী করছে আর প্রথম শ্রেনীর লোক বেকার ঘুরে বেড়াচ্ছে। প্রকৃত প্রাপক যেমন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এর পরিবর্তে নাতী নাতনি পাচ্ছে।

Mohammad Abdullah

২০১৮-০৩-২১ ০২:২৯:২৬

কোটা ব্যবস্থা আমার কাছে বিষের মতো। আমি এটাকে চরম ঘৃণা করি। কারণ, এর দ্বারা মেধাবীদের ধ্বংস করা হচ্ছে।

আপনার মতামত দিন

শনিবার বন্ধ থাকবে যেসব সড়ক

‘জামায়াতের সঙ্গে জোট আছে, থাকবে’

পুতিনকে হোয়াইট হাউজে আমন্ত্রণ ট্রাম্পের

২৩ শর্তে বিএনপিকে সমাবেশের অনুমতি

আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারীর অভাব নেই: মান্না

মোদীর বিকল্প নেই মানতে নারাজ অমর্ত্য সেন

‘মি. বিনে’র মৃত্যুর গুজব, ভাইরাস ছড়ানোর কৌশল

‘ডন’ প্রধানের বিস্ফোরক সাক্ষাৎকারে পাকিস্তানে তোলপাড়

তরুণ কর্মীকে নিজের গাড়ি উপহার দিলেন বস

জামালপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩

মাদকবিরোধী অভিযান: ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৩

‘নাট্য নির্মাতারা এখন ভালো চলচ্চিত্র নির্মাণ করছেন’

কোনো দেশের সঙ্গে মিলছে না বাংলাদেশের কোটা পদ্ধতি

সাত বছরে সর্বনিম্ন ফল

অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন দেখতে চায় ইইউ

নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা