৮ই মে পর্যন্ত খালেদার জামিন স্থগিত

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ১৯ মার্চ ২০১৮, সোমবার, ৯:৩১ | সর্বশেষ আপডেট: ২:১৩
জিয়ার অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় কারাদণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া জামিন স্থগিত করেছেন আপিল বিভাগ। আগামী ৮ই মে পর্যন্ত জামিন স্থগিত রেখেছেন আদালত।প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত আপিল বিভাগ আজ সোমবার সকালে এ আদেশ দিয়েছেন। একইসঙ্গে লিভ টু আপিল গ্রহণ করে আপিলের সারসংক্ষেপ দু’সপ্তাহের মধ্যে জমা দিতে দুদক এবং রাষ্ট্রপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বিএনপির আইনজীবী জয়নাল আবেদীন আদালতের এ আদেশকে নজিরবিহীন বলে আখ্যা দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘সর্বোচ্চ আদালতের এ আদেশে আমরা মর্মাহত, ব্যথিত।’  তিনি অভিযোগ করেন, ‘খালেদা জিয়াকে নির্বাচনের বাইরে রাখার জন্য সরকার ও দুদক এক হয়ে গেছে। বেশ কিছুদিন ধরে নিম্ন আদালতকে এ সরকার গ্রাস করে ফেলেছে।
মনে হচ্ছে, উচ্চ আদালতকেও সরকার আস্তে আস্তে গ্রাস করে ফেলছে।’

এর আগে গতকাল রোববার খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া জামিন আদেশের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ও রাষ্ট্রপক্ষের করা পৃথক লিভ টু আপিলের শুনানি হয়। এদিন, উভয়পক্ষের আইনজীবীদের শুনানির পর প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত আপিল বিভাগ আদেশের জন্য সোমবার (আজ) দিন ধার্য করেন।
আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ ও খন্দকার মাহবুব হোসেন। দুদকের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী খুরশিদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। এর আগে বুধবার (১৪ই মার্চ) এক আদেশে খালেদা জিয়ার জামিন রোববার পর্যন্ত স্থগিত করে এই সময়ের মধ্যে রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদককে লিভ টু আপিল দায়েরের নির্দেশ দেন সর্বোচ্চ আদালত। পরে বৃহস্পতিবার দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা পৃথক লিভ টু আপিল করেন। গত ১২ই মার্চ খালেদা জিয়াকে চার মাসের অন্তবর্তীকালীন জামিন দেন বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ।

এর আগে গত ৮ই ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের কারাদণ্ড দেন ঢাকার পঞ্চম বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মো. আখতারুজ্জামান। এ মামলার অন্য আসামিদের ১০ বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত। একই সঙ্গে দণ্ডপ্রাপ্তদের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা জরিমানা করা হয়। ২০শে ফেব্রুয়ারি সাজার রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেন খালেদার আইনজীবীরা। ২২শে ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট আপিল গ্রহণ করে খালেদা জিয়াকে বিচারিক আদালতের দেয়া অর্থদণ্ডের আদেশ স্থগিত করে জামিন শুনানির দিন (২৫শে ফেব্রুয়ারি) ধার্য করেন। একই সঙ্গে এ মামলার বিচারিক আদালতের নথি তলব করেন যা ১৫ দিনের মধ্যে দাখিল করতে বলা হয় আদেশে। পরে ১১ই মার্চ বিচারিক আদালত থেকে হাইকোর্টে নথি আসে।

[উৎপল]

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Farid Ahmed

২০১৮-০৩-১৮ ২২:৫৯:১২

দেশের প্রত্যেক অংঙ্গই এখন দলবাজদের দখলে।

আপনার মতামত দিন

ঢাবিতে মধ্যরাতের তুঘলকি কাণ্ডে তোলপাড়, বিক্ষোভ

খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা খারাপ: ফখরুল

ইকোনমিস্টের চোখে কোটা সংস্কার আন্দোলন

কোন অপরাধের শাস্তি হয়নি বলুন?

রাজীবরা মারা যায় কিছুই বদলায় না

রাতটুকু কেন অপেক্ষা করা গেল না?

সংকটে আওয়ামী লীগ সুসংহত বিএনপি

নির্বাচনী বছরে ফের পদোন্নতি আসছে প্রশাসনে

প্রত্যেক স্বৈরাচারের পতন ঘটেছে

পরিচালনায় ৫ ধাপের কমিটি বিএনপির

ত্রিভুবনে রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়লো মালয়েশীয় বিমান

পদত্যাগ না বহিষ্কার-এ নিয়েও বিতর্কে রনি

নড়াইলে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টাসহ ৫৮ নেতাকর্মী আটক

টাইমের প্রভাবশালী ১০০ ব্যক্তির তালিকায় প্রধানমন্ত্রী

স্বজনরা সাক্ষাত পাননি, উদ্বিগ্ন বিএনপি

১৩৩ ফুট উঁচু টাওয়ারে মানসিক ভারসাম্যহীন জাকির, ১০ ঘন্টা পর উদ্বার