ইয়াসিনের রেকর্ডে আবাহনীর টানা হার

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ১৫ মার্চ ২০১৮, বৃহস্পতিবার
লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে প্রথম বাংলাদেশি বোলার হিসেবে ইনিংসে ৮ উইকেটের কীর্তি গড়লেন ইয়াসিন আরাফাত। আর গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের ১৯ বছর বয়সী এ পেসারের বোলিং তাণ্ডবে মলিন হার দেখলো শক্তিধর আবাহনী লিমিটেড। ঘরোয়া লিস্ট ‘এ’ আসর ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগে (ডিপিডিএল) গতকাল গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের বিপক্ষে ৮ উইকেটে হার দেখে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষ দল আবাহনী লিমিটেড। আর আবাহনীর টানা হারে জমে উঠলো এবারের ঢাকা লীগ। আসরে সুপার লীগ পর্বের সম্ভাবনা জীবিত রয়েছে ১০টি দলের। গতকাল ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী মাঠে আবাহনীর বিপক্ষে বল হাতে ৮.১ ওভারের স্পেলে ৪০ রানে ৮ উইকেট নেন ইয়াসিন আরাফাত।
লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে বাংলাদেশি কোনো বোলারের এটি সেরা নৈপুণ্য। এতে মাত্র ১১৩ রানে গুঁড়িয়ে যায় আবাহনীর ইনিংস। আবাহনীর ভারতীয় ব্যাটসম্যান মনন শর্মা ৪৬ ও মোহাম্মদ মিঠুন করেন ৪০ রান। ব্যক্তিগত এক অঙ্কের রানে সাজঘরে ফেরেন আবাহনী ৮ ব্যাটসম্যান। জবাবে ১২১ বল বাকি রেখে আট উইকেটে জয় দেখে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স। হার না মানা ৫২ রানের ইনিংসে খেলেন ওপেনার জহুরুল ইসলাম অমি। আর ৩৯ রানে অপরাজিত থাকেন গাজী গ্রুপের পাকিস্তানি ব্যাটসনম্যান ফাওয়াদ আলম। আসরে শিরোপা প্রত্যাশী আবাহনীর এটি টানা দ্বিতীয় হার। চলতি লীগে ১০ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার শীর্ষ দল আবাহনীর সুপার লীগের টিকিট নিশ্চিত। গতকাল অগ্রণী ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবের বিপক্ষে জয় নিয়ে সুপার লীগ নিশ্চিত প্রাইম দোলেশ্বর ক্রিকেট ক্লাবেরও। সমান ম্যাচে ১৩ পয়েন্ট দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে দোলেশ্বর। প্রথম পর্বের দুই ম্যাচ হাতে রেখে ১২ পয়েন্ট নিয়ে তালিকায় লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের অবস্থান তৃতীয়।
গতকাল ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে টস জিতে আবাহনীকে ব্যাটিংয়ে পাঠান গাজী গ্রুপের অধিনায়ক জহুরুল ইসলাম অমি। আর গাজী গ্রুপের হয়ে দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে নামা ইয়াসিন আরাফাতের বোলিং তোপে পড়ে আবাহনী। মাত্র ১২ রান তুলতেই সাজঘরে ফিরে যান দলটির প্রথম সারির পাঁচ ব্যাটসম্যান। ব্যাট হাতে ‘ডাক’ মারেন নাজমুল হোসেন শান্ত, অধিনায়ক নাসির হোসেন ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। ওপেনার এনামুল হক বিজয় ১০ ও সাইফ হাসান উইকেট খোয়ান ব্যক্তিগত ১ রানে। এতে বিরল ধসে মাত্র ৪.৪ ওভার শেষে আবাহনীর সংগ্রহ দাঁড়ায় ১২/৫-এ। ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে ইনিংস সামাল দিতে চেষ্টা করেন মনন শর্মা ও মোহাম্মদ মিঠুন। তবে ব্যক্তিগত ৪০ রানে গাজী গ্রুপের অফস্পিনার টিপু সুলতানের বলে মিঠুন বোল্ড হয়ে গেলে চাপ বাড়ে আবাহনীর ওপর। আর ব্যক্তিগত ৪৬ রানে মনন শর্মাকে সাজঘরের পথ দেখিয়ে আবাহনীর আশা গুঁড়িয়ে দেন আরাফাতই। লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে বাংলাদেশের প্রথম বোলার হিসেবে ইনিংসে ৮ উইকেটের কীর্তি গড়লেন ডান হাতি এ তরুণ পেসার। লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেট ইতিহাসে বল হাতে ইনিংসে আট উইকেটের কীর্তিগড়া মাত্র ১১তম ক্রিকেটার তিনি। এতদিন লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে বাংলাদেশের সেরা বোলিংয়ের রেকর্ডটি ছিল আবদুর রাজ্জাকের। ২০০৩-০৪ মৌসুমে ঢাকায় জিম্বাবুয়ে ‘এ’ দলের বিপক্ষে ১৭ রানে ৭ উইকেট নিয়েছিলেন বাংলাদেশের এ বাঁ-হাতি এই স্পিনার। চলতি আসরে ১০ ম্যাচে ৪৭২ রান নিয়ে তালিকার তৃতীয় স্থানে রয়েছেন এনামুল হক বিজয়। ৯ ম্যাচে ৪৮৯ রান তালিকার শীর্ষে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের নাঈম ইসলাম। বোলারদের তালিকায় ১০ ম্যাচে ২৮ উইকেট নিয়ে শীর্ষে রয়েছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। আসরে মোহামেডানের তরুণ পেসার কাজী অনিকের শিকার দ্বিতীয় সর্বাধিক ২০ উইকেট।

ডিপিডিএল তালিকা
দল ম্যাচ জয় হার প.
আবাহনী ১০ ৭ ৩ ১৪
দোলেশ্বর ১০ ৬ ৩ ১১
রূপগঞ্জ ৯ ৬ ৩ ১২
শাইনপুকুর ১০ ৫ ৫ ১০
প্রাইম ব্যাংক ১০ ৫ ৫ ১০
গাজী গ্রুপ ১০ ৫ ৫ ১০
খেলাঘর ৯ ৫ ৪ ১০
মোহামেডান ৯ ৪ ৪ ৯
ব্রাদার্স ইউ. ৯ ৪ ৫ ৮
শেখ জামাল ৯ ৪ ৫ ৮
অগ্রণী ব্যাংক ১০ ৩ ৭ ৬
কলাবাগান ৯ ৭ ২ ৪
সংক্ষিপ্ত স্কোর
টস: গাজী গ্রুপ, ফিল্ডিং
আবাহনী লিমিটেড: ২৬.১ ওভার; ১১৩ (মনন শর্মা ৪৬, মিঠুন ৪০, বিজয় ১০, ইয়াসিন ৮/৪০, টিপু সুলতান ২/২৩)।
গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স: ২৯.৫ ওভার; ১১৪/২ (জহুরুল ৫২*, ফাওয়াদ ৩৯*, মাশরাফি ১/১৮, সন্দীপ ১/১৯)।
ফল: গাজী গ্রুপ ৮ উইকেটে জয়ী
ম্যাচসেরা: ইয়াসিন আরাফাত (গাজী গ্রুপ)

লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে সেরা বোলিং
ফিগার খেলোয়াড় ম্যাচ ভেন্যু সাল
৮/১৫ রাহুল সাংভি (ভারত) দিল্লি-হিমাচল ইউএনএ ১৯৯৮
৮/১৯ চামিন্ডা ভাস (শ্রীলঙ্কা) শ্রীলঙ্কা-জিম্বাবুয়ে কলম্বো ২০০১
৮/২০ থারাকা কট্টেয়া (শ্রীলঙ্কা) ননডেস-রাগামা কলম্বো ২০০৭
৮/২১ মাইকেল হোল্ডিং (ও.ইন্ডিজ) ডার্বিশায়ার-সাসেক্স হোভ ১৯৮৮
৮/২৬ কিথ বয়েস (ও. ইন্ডিজ) এসেক্স-ল্যাঙ্কাশায়ার ম্যানচেস্টার ১৯৭১
৮/৩০ রমেশ এরাঙ্গা (শ্রীলঙ্কা) বার্গের-শ্রীলঙ্কা আর্মি কলম্বো ২০০৭
৮/৩১ ডেরেক আন্ডারউড (ইংল্যান্ড) কেন্ট-স্কটল্যান্ড এডিনবার্গ ১৯৮৭
৮/৪০ ইয়াসিন আরাফাত (বাংলাদেশ) গাজী গ্রুপ-আবাহনী ফতুল্লা ২০১৮
৮/৪৩ শন টেইট (অস্ট্রেলিয়া) দ. অস্ট্রেলিয়া-তাসমেনিয়া অ্যাডিলেড ২০০৩
৮/৫২ কেভিন স্টাউট (ও. ইন্ডিজ) ও. ইন্ডিজ ‘এ’-ল্যাঙ্কাশায়ার ম্যানচেস্টার ২০১০
৮/৬৬ সিমন ফ্রান্সিস (ইংল্যান্ড) সমারসেট-ডার্বিশায়ার ডার্বি ২০০৪




এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

অক্টোবরে নির্বাচনকালীন সরকার: ওবায়দুল কাদের

বাংলাদেশী ভক্তদের জন্য মেসির ভিডিও (ভিডিওসহ)

তিন সিটি নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন ১২জন

জর্জটাউন ইউনিভার্সিটিতে বাংলাদেশ ডেমোক্রেসি কনফারেন্স ২০ জুন

সাবেক দুই পর্নো তারকার ৬ মাসের জেল

যে যুবতী ফুটবল মাঠে পোশাকের তোয়াক্কা করেন না

যেমন করে নির্যাতিত হন প্রিসিয়াসরা

জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল ছেড়েছে যুক্তরাষ্ট্র

সরাসরি সম্প্রচার চলাকালে নারী সাংবাদিককে অকস্মাৎ চুমু, অতঃপর

সংঘর্ষের জেরে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে উত্তেজনা

‘সেটা আসলে এখনই বলতে পারছি না’

৪ মিনিটে মিশরের জালে আরো ২ গোল রাশিয়ার

কলম্বিয়াকে হারিয়ে জাপানের ইতিহাস

প্রচারণায় কেন্দ্রীয় নেতারা উত্তেজনা বাড়ছে

গ্যালারিতে অন্য আকর্ষণ

উছিলা বিশ্বকাপ উদ্দেশ্য ভিন্ন