কেবলই ভালোবাসা নয়

দেশ বিদেশ

সুদীপ অধিকারী | ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, বুধবার
ভালোবাসতে কে না চায়? জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সব মানুষই ভালোবাসার কাঙাল। সেই ভালোবাসাকে একটি নির্দিষ্ট দিবসে বন্দি করার বিরোধী অনেকেই। তারা মনে করেন, ভালোবাসার জন্য কোনো নির্দিষ্ট দিন, সময় বা তারিখ লাগে না। একজন মানুষ তার ভালোবাসার মানুষকে সব সময়ই ভালোবাসে। এটা ঘটা করে পালন করার ভেতর তেমন কোনো মাহাত্ম্য নেই। একে অপরের মধ্যে ভালোবাসা থাকলে, যেকোনো সময়ই তা পালন করা যায়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র আদিত্য বলেন, আমি আমার বাবা-মা, ভাই, বোন, বন্ধুদেরকে সবসময়ই ভালোবাসি। কোনো নির্দিষ্ট দিনে ফুল দিয়ে তাদের প্রতি ভালোবাসা দেখানো এটা শুধুমাত্র হাস্যকরই না, তাদের ভালোবাসাকে অপমান করারও শামিল। তিনি বলেন, ভালোবাসা দিবসে শুধুমাত্র এক শ্রেণির মানুষের আয় বৃদ্ধি ছাড়া আর কিছু হয় না। অনেকেই অধিক লাভের আশায় এই দিন রাস্তায় ফুলের পসরা সাজিয়ে বসে। তিন টাকায় গোলাপ কিনে বিক্রি করে ৩০ টাকায়। রেস্টুরেন্টগুলোতে থাকে হরেক রকম খাবারের প্যাকেজ। রিকশা চালকেরাও সুযোগে ভাড়া হাকায় তিনগুণ। তাই কোনো নির্দিষ্ট দিনে ভালোবাসা দিবস উদযাপন শুধুমাত্র এর বাণিজ্যিকরণ ছাড়া আর কিছুই না। বেসরকারি বিশববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. মো. মোস্তফা রাসেল বলেন, বন্ধুর প্রতি বন্ধুর ভালোবাসা, সন্তানের সঙ্গে পিতা-মাতার ভালোবাসা, ভাই-বোনের ভালোবাসা, শিক্ষক-শিক্ষার্থীর ভালোবাসা সবই চিরন্তন। একে কোনো নির্দিষ্ট দিন, ক্ষণ, তারিখে পালনের মধ্যে তেমন কোনো বিশেষত্ব নেই। ব্যাংক কর্মী মেহেতাব খানম বলেন, ভালোবাসা দিয়ে মানুষ একে অপরের মধ্যকার সম্পর্কের বন্ধনটা আরো শক্ত করে তুলতে চায়। আর এতে শুধুমাত্র প্রয়োজন দু’জনের মধ্যে ভালো বোঝাপড়া ও গ্রহণযোগ্যতা। কিন্তু ভালোবাসা দিবস পালনের নামে যা হয় তা গ্রহণযোগ্য নয়।
সরকারি তিতুমীর কলেজের ছাত্র সৌরভ, বিখ্যাত সেই গানের লাইন, ‘ভালোবেসে সুখী হতে বল কে না চায়, রাধা সুখী হয়েছিল এই শ্যামরায়’ চয়ন করে বলেন, ভালোবাসা দিবস শুধুমাত্র কোটিপতি বাপের ছেলে-মেয়েদেরই পালন করা শোভা পায়। আমাদের মতো মধ্যবিত্ত পরিবারের না। ঢাকা শহরে পড়ালেখা করতে এসেছি। বাড়ি থেকে পাঠানো টাকা দিয়ে খুব কষ্ট করে মাস পার করতে হয়। কিন্তু ১৪ই ফেব্রুয়ারিতে ভালোবাসা দিবস পালনে বন্ধু-বান্ধবেরা অনেক আশা করে থাকে। তাদের মন রাখতে গিয়েই পরতে হয় নানা সংকটে। পকেটে যেমন টাকা থাকে সীমিত, তেমন সুযোগ বুঝে প্রায় সব কিছুরই দাম বাড়িয়ে দেয় বিক্রেতারা।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

রাজনীতিতে যোগ দিলেন অভিনেতা কমল হাসান

রোহিঙ্গা গণহত্যার প্রমাণ ধ্বংস করে দিচ্ছে মিয়ানমার

আসাম নিয়ে আশঙ্কায় বাংলাদেশ

গুপ্তচর ছিলেন বৃটেনের বিরোধী দলীয় নেতা?

বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক নির্ণয়ের তিন ইস্যু

দুর্নীতির সূচকে ৮ ধাপ উন্নতি বাংলাদেশের

আপিল শুনানি এক সপ্তাহ মুলতবি

‘আমি সেই কঠিন কাজটি করতে চাই’

‘ভারতে বাংলাদেশি অনুপ্রবেশের নেপথ্যে চীন সমর্থনপুষ্ট পাকিস্তান’

মেডিকেল টেস্ট নিয়ে অরাজকতা

বাংলাদেশ-চীন সম্পর্ক নিয়ে ভারতের উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই

নেশার ভয়ঙ্কর জগতে শিশুরাও

মিয়ানমারকে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে নিতে দ্ব্যর্থহীন সমর্থন দিন

অনিশ্চয়তা প্রভাব ফেলছে অর্থনীতির ওপর

শনিবার কালো পতাকা মিছিল বিএনপি’র

জুয়ার আসরে উড়ছে কোটি টাকা