তাঁকে শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে পাস করে এসে যোগ্যতার প্রমাণ রাখতে হয়

ফেসবুক ডায়েরি

আহমেদ তানভীর | ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:২৬
আমাদের দেশের রাজনৈতিক সরকার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে এ দেশের জন্মলগ্ন থেকে কখনোই শিক্ষা বা গবেষণার পীঠস্থান হিসেবে দেখেনি। তারা এটিকে দেখেছে রাজনৈতিক পেশিশক্তি প্রদর্শনের অন্যতম জায়গা হিসেবে। তাদের কাছে হিসাব অত্যন্ত সোজা। যেকোনো আন্দোলন, রাজনৈতিক বা অরাজনৈতিক হোক, সেটি গড়ে ওঠে এবং বেগবান হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে কেন্দ্র করে। তাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে ঠান্ডা রাখতে পারলে অনেকখানি নাকে তেল দিয়ে ঘুমানো যায়। এই রাজনৈতিক পেশিশক্তির আঁধারকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে হলে প্রথমে যেটি দরকার, সেটি হলো ক্ষমতায় থাকা রাজনৈতিক শক্তির একান্ত অনুগত একজন ব্যক্তি। বেশির ভাগ সময়ে তাঁকে আনুগত্যের পরীক্ষা দিতে হয় দলীয় শিক্ষকদের নেতৃত্ব দিয়ে এবং তাঁর নেতা হওয়ার যে ক্ষমতা আছে, সেটির প্রমাণ দিয়ে। সে ক্ষেত্রে তাঁকে শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে পাস করে এসে যোগ্যতার প্রমাণ রাখতে হয়।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

আমানুল্লাহ কবীর আর নেই

ব্রেক্সিটে তেরেসার হার কী ঘটবে বিলেতে

কিলিংমিশনে অংশ নেয়া আসাদুল্লাহ গ্রেপ্তার

টিআইবি’র রিপোর্টের কড়া সমালোচনায় মন্ত্রীরা

ধর্ষিতার কান্না বললেন, আমি বিচার চাই

রাতের ‘আতঙ্ক’

কাভার্ডভ্যানের চাপায় একটি স্বপ্নের মৃত্যু

অনলাইনে বাড়ছে মানবজমিন-এর জনপ্রিয়তা

বিনিয়োগ শিল্পোদ্যোক্তা বাড়ানোই লক্ষ্য

টিআইবির প্রতিবেদন সিইসির প্রত্যাখ্যান

সীমান্ত দিয়ে ঢুকছে মাদক, অস্ত্র, জড়িত শতাধিক সিন্ডিকেট

শ্রমিক অসন্তোষে ১২ মামলায় গ্রেপ্তার ৪৪

যেভাবে তৈরি হবে আবেদনকারীর ফলাফল

হাসি ফিরলো শাহনাজের

কূটনীতিকদের মুখোমুখি হচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

এমপিদের শপথের বৈধতা রিটের আদেশ আজ