নির্বাচন নিয়ে সরগরম অফিসার্স ক্লাব, প্রার্থীদের নানা প্রতিশ্রুতি

এক্সক্লুসিভ

বিশেষ প্রতিনিধি | ১৩ জানুয়ারি ২০১৮, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৪:১৯
অফিসার্স ক্লাব ঢাকা নির্বাহী কমিটির ২০১৮-২০১৯ মেয়াদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১৯শে জানুয়ারি। নির্বাচনকে সামনে রেখে নানা কৌশলে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন প্রার্থীরা। ভোটারদের কাছে টানতে প্রার্থীরা নানা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। মোবাইল ফোনে ক্ষুদে বার্তা (এসএমএস) পাঠাচ্ছেন। অনেক প্রার্থী বিকালে ক্লাবে হাজির হয়ে দোয়া ও ভোট চাইছেন। ক্লাবের অনেক সদস্য নিজেদের পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা চালাচ্ছেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, অফিসার্স ক্লাবে সহ-সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, কোষাধ্যক্ষ, যুগ্ম সম্পাদক ও সদস্যসহ ২২টি পদের বিপরীতে প্রার্থী হয়েছেন ৪৫ জন সরকারি কর্মকর্তা। প্রার্থীদের মধ্যে বর্তমান সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের বর্তমান দায়িত্বরত সচিবসহ বেশকিছু প্রভাবশালী কর্মকর্তা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ক্লাবে মোট ভোটার সংখ্যা ৪ হাজার ৭৩১ জন। যদিও ক্লাবের বর্তমান সদস্য সংখ্যা পাঁচ হাজার তিনশ’ জন। অফিসার্স ক্লাব সূত্র জানায়, সংবিধান অনুসারে সরকারের মন্ত্রিপরিষদ সচিব হন ক্লাবের সভাপতি। বর্তমানে এ পদে রয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। এই পদটিতে কখনো নির্বাচন হয় না। সহ-সভাপতি পদের সংখ্যা মোট তিনটি। এ তিন পদের বিপরীতে মোট ৮ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন- সাবেক অতিরিক্ত সচিব এমএ রাজেক, প্রফেসর ডা. মো মোজাহেরুল হক, পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব কেএএম মোজাম্মেল হক, অবসরপ্রাপ্ত অতিরিক্ত সচিব আনছার আলী খান, আমিনুল ইসলাম, মো. গোলাম মোস্তফা, রওশন আরা জামান এবং বাংলাদেশ আনসারের সাবেক উপ-মহাপরিচালক ড. ফোরকান উদ্দীন আহাম্মদ। সাধারণ সম্পাদকের একটি পদে লড়ছেন তিন প্রার্থী। তারা হলেন- সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব ইব্রাহীম হোসেন খান, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের পরিচালক (যুগ্ম সচিব) এম খালিদ মাহমুদ এবং কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. মোশারফ হোসেন। কোষাধ্যক্ষের একটি পদে যুগ্ম কর কমিশনার ব্যারিস্টার মোতাসিন বিল্লাহ ফারুকী ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মেজবাহ উদ্দীন। যুগ্ম সম্পাদকের তিন পদের বিপরীতে লড়ছেন পাঁচজন। তারা হলেন- কর কমিশনার নাহার ফেরদৌসি ঝরনা, ঢাকা কলেজের অধ্যাপক ড. ফেরদৌসি খান, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব খন্দকার মোস্তান হোসেন, ডা. সৈয়দ ফিরোজ আলমগীর, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের যুগ্ম সচিব মো. জাহাঙ্গীর আলম। ১৪টি সদস্য পদের বিপরীতে মোট ৩৬ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এরা হলেন- ডা. মো. এমদাদুল হক, এমএ মজিদ, আবদুল মান্নান, ডা. মনিলাল আইচ লিটু, আশরাফুল খান রোজি, মীর মনজুরুর রহমান, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপ-প্রধান মো. মনছুরুল আলম, শেখ মো. শরীফ উদ্দীন, ড. মো. জাকেরুল আবেদীন (আপেল), স্বপন কুমার রায়, সৈয়দ মাহফুজ আহমেদ, মুহাম্মদ সাবিক সাদাকাত, একে বোরহানউদ্দীন, শ্যামাপদ, মো. আখতারুজ্জামান, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর একান্ত সচিব (যুগ্ম সচিব) ড. মো. হারুন অর রশিদ বিশ্বাস, আসমা সিদ্দিকা মিলি, মোহাম্মদ আব্দুল মজিদ, আব্দুল মান্নান ইলিয়াস, শাহীন আরা মমতাজ (রেখা), আলমগীর হোসেন, শাহাদৎ হোসাইন, উপ-প্রধান তথ্য অফিসার স. ম. গোলাম কিবরিয়া, প্রাদ্যুৎ কুমার সাহা, মোতাহার হোসেন, মন্মথ রঞ্জন বাড়ৈ, জেসমিন আক্তার, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব রথীন্দ্র নাথ দত্ত, মাসুদ করিম, তানিয়া খান, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের যুগ্ম সচিব আজহারুল ইসলাম খান, জনপ্রশাসন মন্ত্রীর পাবলিক রিলেশন অফিসার মমিনুল হক (জীবন), মোহাম্মদ শাহজালাল, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের উপ-সচিব সৈয়দা সালমা জাফরীন ও মোহাম্মদ নাছির উদ্দীন মৌসুমি।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

‘কোটার কারণে দেশের মেধাবীরা আজ বিপন্ন’

১০০০০০ অবৈধ বাংলাদেশিকে ফেরাতে প্রণোদনা দেবে ইইউ

ট্রাম্প প্রশাসন আটকে গেছে

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গুলিতে নিহত ১

মেয়র আইভী আশঙ্কামুক্ত

নেপথ্যে কোটি টাকার চাঁদাবাজি

উপযুক্ত সময়ে নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা ঘোষণা

সহায়ক সরকারে বিএনপির অংশগ্রহণ থাকবে না

তিনি তখন টেলিফোন অন রাখতেন

টঙ্গীমুখী মানুষের স্রোত

‘চোখের সামনে বাবাকে মরতে দেখেছি বাঁচাতে পারিনি’

ওটা যেন আমার মৃত্যু পরোয়ানা ছিল

ভালো নেই বৃক্ষমানব মুক্তামণির পরিবারও দুশ্চিন্তায়

সিলেট-৩ আসনে মনোনয়ন আদায় করে ছাড়ব

‘সহায়ক সরকারে বিএনপির অংশগ্রহণ থাকবে না’

কারাবন্দি বাবাকে দেখে ফেরার পথে প্রাণ গেল ছেলের