‘নিজেকে যখন পরিপক্ব মনে হবে তখনই নির্দেশনায় আসবো’

বিনোদন

এন আই বুলবুল | ১৩ জানুয়ারি ২০১৮, শনিবার
ছোট পর্দার অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা আহমেদ। ২০০১ সালে বাবার (প্রয়াত অভিনেতা বুলবুল আহমেদ) হাত ধরে নায়িকা চরিত্রে অভিনয় শুরু করেন। বুলবুল আহমেদ নির্দেশিত রবীন্দ্রনাথের ‘সুভা’ নাটকে তাকে প্রথম নায়িকা চরিত্রে দেখা যায়। পরবর্তী সময়ে ‘পারমিতার দিনরাত্রি’, ‘অটুট বন্ধন’, ‘ভালোবাসার নীল প্রজাপতি’ ও ‘চন্দ্রহারা রাত্রি’সহ বেশকিছু দর্শকপ্রিয় নাটক দর্শকদের তিনি উপহার দিয়েছেন। ছোট পর্দার নায়িকা হওয়া প্রসঙ্গে ঐন্দ্রিলা বলেন, সেই সময় অনেক নির্মাতা আমাকে কাজের প্রস্তাব দিতেন। কিন্তু বাবা চেয়েছেন তার নাটকের মধ্য দিয়ে আমার নায়িকা চরিত্রে অভিষেক হোক।
তবে শিল্পী হিসেবে আমার সৌভাগ্য তার মতো একজন মানুষের হাত ধরেই আমি অভিনয়ে এসেছি। ২০০৭ সালে ঐন্দ্রিলা ‘ঐখানে যেও নাকো তুমি’ নাটকের পর অভিনয়ে বিরতি টানেন। দীর্ঘ ১০ বছর পর সম্প্রতি তিনি আবারো অভিনয়ে ফিরেছেন। এই যাত্রায় তিনি অভিনেতা অপূর্বর সঙ্গে ‘বিলাভড’ শিরোনামের একটি নাটকের মধ্য দিয়ে অভিনয় শুরু করেন। এটি ছাড়াও অপূর্বর সঙ্গে ‘সাংসারিক ভালোবাসা’ ও সজলের সঙ্গে ‘ফেইক লাভ’ শিরোনামের আরো দুটি নাটকের কাজ শেষ করেছেন। দীর্ঘ সময় পর অভিনয়ে ফেরার কারণ কি? উত্তরে ঐন্দ্রিলা বলেন, নির্মাতাদের আগ্রহে অভিনয়ে ফিরেছি। এই সময়ের অনেক নির্মাতা কাজের জন্য আমার সঙ্গে যোগাযোগ করতেন। আমার প্রতি তাদের আস্থা দেখে কাজ করার সাহস পেয়েছি। অভিনয়ে ফিরে সবার সহযোগিতা ও উৎসাহে আমি মুগ্ধ। নতুন করে কাজ করার প্রেরণা পাচ্ছি। ১০ বছরের এই সময়ে নাট্যাঙ্গনের পরিবর্তন নিয়েও কথা বলেন এই সুকন্যা। নাটকের মানুষদের মধ্যে এখন গ্রুপিং বিষয়টা বেশি দেখা যাচ্ছে বলে তিনি মনে করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের নাট্যাঙ্গনের মানুষদের মধ্যে গ্রুপ সৃষ্টি হয়েছে। সবাই সবার গ্রুপের কলাকুশলীদের সঙ্গে কাজ করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন। এর ফলে অনেকের সঙ্গে দূরত্বও সৃষ্টি হচ্ছে। একটি পক্ষ অন্য পক্ষের সঙ্গে তেমন কাজে আগ্রহ দেখায় না।  কিন্তু আমার শুরুর দিকে এই গ্রুপ বিষয়টি ছিল না। সবাই আমরা একই পরিবারের মতো কাজ করেছি। তবে এই সময়ে আমাদের টেকনিক্যালি উন্নয়ন হয়েছে। নির্মাণ ও গল্পবলাসহ বেশ কিছু বিষয়ে নতুনত্ব এসেছে। ঐন্দ্রিলাকে কি শুধু ছোট পর্দায়ই দেখা যাবে? বড় পর্দার কাজ নিয়ে কোনো পরিকল্পনা কি তার নেই? এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমার ভালোবাসার জায়গা হলো ছোট পর্দা। তবে  বড় পর্দার শিল্পীর ঘরে আমার জন্ম। সেই দিক থেকে বড় পর্দায় কাজ করার জন্য ইচ্ছে রয়েছে। কয়েকটি চলচ্চিত্রের জন্য প্রস্তাব পেয়েছি। কিন্তু সেগুলোর গল্প ও চরিত্র আমার সঙ্গে যায় না বলে করছি না। মনের মতো গল্প ও চরিত্র পেলে চলচ্চিত্রে কাজ করবো। শিল্পী পরিবারে ঐন্দ্রিলার জন্ম। ছোটবেলা থেকে বাবার অভিনয় ও নির্দেশনা দেখেছেন। কিন্তু তাকে কি কখনো নিদের্শনায় দেখা যাবে? এই প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নির্দেশনায় আমাকে দেখা যাবে। কিন্তু তার জন্য কিছু সময় অপেক্ষা করতে হবে। নিজেকে যখন পরিপক্ব মনে হবে তখনই নির্দেশনায় আসবো। ক্যামেরার পেছনে কাজ করার জন্য আমি ফিল্ম মেকিংয়ের ওপর পড়াশোনা করেছি। সুতরাং, আমার সঠিক সময়টি এলে নির্মাণ শুরু করবো। দেড় যুগ সময় ধরে মিডিয়ায় ঐন্দ্রিলার পথচলা। এরমধ্যে অভিনয়ে ১০ বছরের বিরতি। কিন্তু দর্শক চহিদায় তার কোনো ভাটা পড়েনি। এর পেছনে রহস্য কি? এ প্রসঙ্গে ঐন্দ্রিলা বলেন, কোনো রহস্য নেই। ১০ বছর পরেও দর্শক-নির্মাতারা আগের মতো আমাকে চান, এটি আমার জন্য বড় পাওয়া। এজন্য তাদের কাছে আমি কৃতজ্ঞ। আমি মনে করি দর্শকদের মনে দাগ কাটার জন্য ভালো কাজের প্রয়োজন। অল্প কাজ দিয়েও জনপ্রিয় হওয়া যায়। সারাক্ষণ পর্দায় থাকলেই কেউ সুঅভিনেত্রী হয়ে যায় না।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

অভিযোগের পাহাড়, অসহায় ইউজিসি

প্রত্যাবাসন শুরু হচ্ছে না আজ

মৈত্রী এক্সপ্রেসে শ্লীলতাহানির শিকার বাংলাদেশি নারী

‘২০৬ নম্বর কক্ষে আছি, আমরা আত্মহত্যা করছি’

ট্রেনে কাটা পড়ে দুই পা হারালেন ঢাবি ছাত্র

পুলে যাচ্ছে সেই সব বিলাসবহুল গাড়ি

নীলক্ষেত মোড়ে ব্যবসায়ীদের বিক্ষোভ, এমপির আশ্বাসে স্থগিত

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সফর সফল করতে নির্দেশনা

নেতাকর্মীরা জেলে থাকলে নির্বাচন হবে না: ফখরুল

তিন দিনের ধর্মঘটে এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা

ইডিয়ট বললেন মারডক

সহায়ক সরকারের রূপরেখা প্রণয়নের কাজ শেষ পর্যায়ে

২৩শে ফেব্রুয়ারির মধ্যে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন

বাসায় ফিরছেন মেয়র আইভী

‘আমাকে ইমোশনাল ব্ল্যাকমেইল করে’

জনগণ রাস্তায় নেমে ভোটাধিকার আদায় করবে: মোশাররফ